০৯:৩৬:৪০ সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮

সর্বশেষ সংবাদ :

     • বিএনপি নির্বাচনে আসায় জাতীয় পার্টি ও আওয়ামী লীগ বেকায়দায়: দিলারা চৌধুরী     • ভিডিও কনফারেন্সে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের কাছে যা জানতে চেয়েছেন তারেক রহমান     • আ’লীগের মনোনয়ন পাননি যে ১৩ এমপি     • ২৩২ আসনে প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করল আওয়ামী লীগ     • ফেসবুক একাউন্ট খুলতে জাতীয় পরিচয়পত্র কেন বাধ্যতামূলক নয়: হাইকোর্ট     • বিএনপির নির্বাচনী প্রতীক ‘ধানের শীষ’ নাম সংশোধন চেয়ে হাইকোর্টে রিট     • ভিডিও কনফারেন্সে তারেক রহমানের সাক্ষাৎকার নেয়া আচরণবিধি লঙ্ঘন নয়: ইসি     • ব্রেকিং নিউজ: জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগদান করলেন সাবেক দশ সামরিক কর্মকর্তা     • দেশটাও হিরো আলমের উপযুক্ত হয়ে উঠেছে এতদিনে: তসলিমা নাসরিন     • বাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে যা বললেন ভারতীয় হাই কমিশনার

মঙ্গলবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮, ০৮:৫৮:২৫

কে এই নারী যার জন্য মুসলিম হলো পুরো গ্রামের মানুষ!

কে এই নারী যার জন্য মুসলিম হলো পুরো গ্রামের মানুষ!

এক্সক্লুসিভ ডেস্ক: ইথিওপিয়ার নারী ‘হালিমি গোবো সোরা’ ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত হওয়ার পর গ্রামের অধিবাসীদের মধ্যে ইসলাম ধর্মের প্রচার করতে শুরু করেন। তার তাবলিগের ফলে তার প্রতিবেশী এবং গ্রামের সকলে মুসলমান হন।

ইথিওপিয়ার হালিমি ইসলাম ধর্ম গ্রহণের পর নিজের নাম পরিবর্তন করে ‘রাবেয়া’ রাখেন। দেশটির ইয়াবিলু শহরের অদূরে সিমু গ্রামে ৫ সন্তানকে নিয়ে তিনি বসবাস করেন। ইসলাম ধর্ম গ্রহণের পর তিনি প্রথমে নিজের পরিবার ও আত্মীয় স্বজনদের মধ্যে দাওয়াত শুরু করেন এবং ইসলাম ধর্মের প্রতি আমন্ত্রণ জানান।

তার পরিবারের অন্যান্য সদস্য এবং আত্মীয়রা ইসলাম ধর্ম গ্রহণের পর রাবেয়া তার গ্রামে দীনের দাওয়াত শুরু করেন। রাবেয়া বলেন, এই গ্রামে অনেকবার খৃস্টান ধর্মের প্রচারক গ্রুপ আসে। তাদের নির্দয় আচরণ এবং অনৈতিকতার কারণে বেশ কয়েকবার পরিলক্ষিত করেছি। কিন্তু মুসলমানদের মধ্যে এটা কখনোই দেখতে পায়নি।

মুসলমানদের সুন্দর আখলাকের কারণেই তিনি ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন এবং তিনি আশা করছেন গ্রামের সব মুসলিম প্রতিবেশীর সাথে নিরাপত্তা এবং সম্মানের সাথে জীবন যাপন করতে পারেন।

উল্লেখ্য, ইথিওপিয়া আফ্রিকার একটি দেশ। এটি আফ্রিকার দশম বৃহত্তম দেশ। এই দেশের রাজধানী ‘আদিস আবাব’। সর্বশেষ জরিপ অনুযায়ী দেশটির মোট জনসংখ্যার ৩৩ শতাংশ জনগণ মুসলমান। আওয়ার ইসলাম

ঈশ্বর আসলে কে, এই কৌতুহল আমাকে ইসলামের ছায়াতলে নিয়ে আসে -মর্নিং ওয়ার্কের জন্য কাতজা তার বন্ধু আহমেদের জন্য রেস্টুরেন্টে বসে অপেক্ষা করছেন আর একটু একটু করে কফিতে চুমুক দিচ্ছেন। এমন সময় সূর্যের আলো তার ফ্যাকাশে চামড়া উপর ঝিকমিক করছিল। বন্ধু আহমেদ সকালের প্রার্থনার মসজিদে যাওয়ায় তাকে সেখানে বসে অপেক্ষা করতে হচ্ছিল।

আযান শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে রেস্টুরেন্টের ওয়েটাররা ধীরেসুস্থে মসজিদটির দিকে এগিয়ে যায়। মিশরের এই দৃশ্য তাকে আবেগে আচ্ছন্ন করে ফেলে। এটি যে তার রাশিয়ার কানস্ক শহর থেকে অনেকটাই আলাদা। রাশিয়ার সাইবেরিয়ায় তুষারময় শহর কানস্ক শহর ছেড়ে একটি স্বেচ্ছাসেবক সফরের জন্য তাকে মিশর যেতে হয়েছিল।

শিশুদের জন্য একটি এনজিওতে কাজ করার কাদজা সেখানে ৪০ দিন ব্যয় করেছিলেন। এসময়ে তিনি সেখানে অসংখ্য মুসলিম বন্ধু তৈরি করেন। তিনি এসব মুসলিমের জীবন ধারাকে অত্যন্ত কাছ থেকে দেখতে পান। এরপর হঠাৎ করেই তার মনে প্রশ্নের জন্ম দেয়।

তিনি বলেন, ‘আমি ছিলাম একজন অর্থডক্স খ্রিস্টান। কিন্তু আমি ঈশ্বরকে বিশ্বাস করি নি এবং হঠাৎ করেই আমি প্রায় সব কিছু নিয়ে নিজেকে প্রশ্ন করি। ঈশ্বর সম্পর্কে আমার মুসলিম বন্ধুদের কথা আমার মনে আগ্রহ জন্মায়। এই ঈশ্বর আসলে কে- তা জানতে আমি অত্যন্ত কৌতুহলী হয়ে উঠি।’

তিনি আরো বলেন, ‘সেখান থেকে রাশিয়ায় ফিরে আসার পর আমি পুনরায় মিশরে ফিরতে ছটফট করতে থাকি। আমি কিছুতেই রাশিয়ায় অবস্থান করতে পারছিলাম না এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশোনা শেষ করা মাত্রই আমি মিশরে ফিরে আসি।’

কোনো চাকরি বা থাকার জায়গা নিশ্চিত না হওয়া সত্ত্বেও ২১ বছর বয়সী শিক্ষক কায়রোতে চলে যান এবং ‘আধ্যাত্মিক যাত্রা’ শুরু করেন। তিনি ব্যাখ্যা করে বলেন, ‘এটি ছিল এমন একটি মুহূর্ত যে সময়ে আমি বুঝতে পারছিলাম না কি করতে হবে। আমি নিজেকে জিজ্ঞাসা করতে শুরু করেছিলাম: জীবনের উদ্দেশ্য কী, কেন আমি এখানে? আমার ভিতরে এমন এক শূন্যতা ছিল যা আমার চারপাশের সবকিছুকে প্রভাবিত করেছিল।’

কাতজা’র অনুসন্ধান প্রথমেই তাকে ক্যাথলিক চার্চে নিয়ে যায়। তিনি তার একজন বন্ধুকে নিয়ে চার্চের একটি অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু রাশিয়ান একটি মুসলিম পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাতের পর তার সবকিছুই পরিবর্তিত হয়ে যায়।

তিনি বলেন, ‘আমি অন্য ধর্ম গ্রহণ করতে পারতাম, কিন্তু ইসলাম আমার অধিকাংশ প্রশ্নের উত্তর দিয়েছিল এবং সঠিক ও ভুল সম্পর্কে আমার মধ্যে যে যুদ্ধ চলছিল তা বন্ধ করে দিয়েছে। ইসলাম খুবই স্পষ্ট এবং যখন আপনি ভয় ও কঠিন চাপের মধ্যে থাকেন, তখন এটি আপনার আত্মাকে শান্তি দেয়।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমি যা পছন্দ করি তা হচ্ছে আল্লাহর কাছে যাওয়ার রাস্তা। আমি বুঝতে পারছিলাম যে আমি প্রার্থনা করতে চেয়েছি, কিন্তু কিভাবে করতে হবে আমি তা জানতাম না। ইসলামে একটি নির্দিষ্ট ধর্ম পদ্ধতি রয়েছে। আপনাকে নির্দিষ্ট পোশাক পরতে হবে এবং একটি নির্দিষ্ট ভঙ্গিতে বসতে হবে। এটি শিক্ষা দেয় যে আপনাকে আপনার জীবন আল্লাহর জন্য ত্যাগ করতে হবে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, এটা অনেকটা আপনার স্বামী থাকার মতোই। সম্পর্ক লালন পালন করতে একে অপরকে কিছু সময় উৎসর্গ করতেই হবে।’

ধর্মান্তরের পর কাতজা তার জীবনধারার মধ্যে এক অসাধারণ পরিবর্তনকে লক্ষ্য করেন নি এবং উপলব্ধি করতে পারেন- কেন তার বন্ধুরা সবসময় বলত যে ধর্মান্তর আগেই তিনি একজন মুসলিম চিন্তার মানুষে পরিণত হয়েছেন।

কাতজা বলেন, ‘আমি অ্যালকোহল পান করতাম না। আমি এমন এক সংস্কৃতি থেকে এসেছি যেখানে অধিকাংশ মানুষই মদ পান করেন এবং আমি দেখেছি যখন লোকেরা খুব বেশি মদ পান করে তখন কি ঘটেছে। আমার একমাত্র চ্যালেঞ্জ ছিল আমার পরিবারকে জানানো।’কায়রো সিন অবলম্বনে
এমটিনিউজ২৪.কম/এইচএস/কেএস



খেলাধুলার সকল খবর »

ইসলাম


মসজিদটি মুসলমানদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ আল কুরআনে বর্ণিত জান্নাতের আদলে নির্মিত

মসজিদটি-মুসলমানদের-পবিত্র-ধর্মগ্রন্থ-আল-কুরআনে-বর্ণিত-জান্নাতের-আদলে-নির্মিত

যে ব্যক্তি পরপর তিনবার জুমআ’র নামাজ ত্যাগ করল, তার পরিণতি…

যে-ব্যক্তি-পরপর-তিনবার-জুমআ’র-নামাজ-ত্যাগ-করল-তার-পরিণতি…

ভোট একটি আমানত, অযোগ্য ব্যক্তিকে ভোট দেয়া কবিরা গুনাহ

ভোট-একটি-আমানত-অযোগ্য-ব্যক্তিকে-ভোট-দেয়া-কবিরা-গুনাহ ইসলাম সকল খবর »

এক্সক্লুসিভ নিউজ


এই গাছটি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের মহৌষধ! নিজে জানুন, অপরকে জানিয়ে দিন

এই-গাছটি-ডায়াবেটিস-নিয়ন্ত্রণের-মহৌষধ--নিজে-জানুন-অপরকে-জানিয়ে-দিন

মেয়েটি স্কুল থেকে ভ্রমণের জন্য একটা বৃদ্ধাশ্রমে গিয়ে খুঁজে পায় তার হারানো দাদীকে!

মেয়েটি-স্কুল-থেকে-ভ্রমণের-জন্য-একটা-বৃদ্ধাশ্রমে-গিয়ে-খুঁজে-পায়-তার-হারানো-দাদীকে-

ঠিক মতো ঘুমাতে পারছেন না? এক মিনিটের মধ্যে ঘুমিয়ে পড়ার কার্যকর টিপস!

ঠিক-মতো-ঘুমাতে-পারছেন-না--এক-মিনিটের-মধ্যে-ঘুমিয়ে-পড়ার-কার্যকর-টিপস- এক্সক্লুসিভ সকল খবর »

সর্বাধিক পঠিত


রাজশাহী খুলনা বরিশাল ও রংপুরের ৮১ আসনে আ’লীগের প্রার্থী চূড়ান্ত

আইপিএলে লিটন দাসকে নিয়ে টানাটানি!

এই গাছটি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের মহৌষধ! নিজে জানুন, অপরকে জানিয়ে দিন

আ.লীগের প্রার্থী তালিকা প্রায় চূড়ান্ত, বাদ পড়ছেন বেশ কিছু সংসদ সদস্য

পাঠকই লেখক


নারী দৌড় দিলো পিছে পিছে কৃষক, পুরোহিত ও বাদশাহ দৌড় দিলো, দৌড়াতে দৌড়াতে...

নারী-দৌড়-দিলো-পিছে-পিছে-কৃষক-পুরোহিত-ও-বাদশাহ-দৌড়-দিলো-দৌড়াতে-দৌড়াতে

দুলাভাই ভয়ংকর

দুলাভাই-ভয়ংকর

বাসর রাত ও মায়াবতী

বাসর-রাত-ও-মায়াবতী পাঠকই সকল খবর »

জেলার খবর


ঢাকা ফরিদপুর
গাজীপুর গোপালগঞ্জ
জামালপুর কিশোরগঞ্জ
মাদারীপুর মানিকগঞ্জ
মুন্সিগঞ্জ ময়মনসিংহ
নারায়ণগঞ্জ নরসিংদী
নেত্রকোনা রাজবাড়ী
শরীয়তপুর শেরপুর
টাঙ্গাইল ব্রাহ্মণবাড়িয়া
কুমিল্লা চাঁদপুর
লক্ষ্মীপুর নোয়াখালী
ফেনী চট্টগ্রাম
খাগড়াছড়ি রাঙ্গামাটি
বান্দরবান কক্সবাজার
বরগুনা বরিশাল
ভোলা ঝালকাঠি
পটুয়াখালী পিরোজপুর
বাগেরহাট চুয়াডাঙ্গা
যশোর ঝিনাইদহ
খুলনা মেহেরপুর
নড়াইল নওগাঁ
নাটোর গাইবান্ধা
রংপুর সিলেট
মৌলভীবাজার হবিগঞ্জ
নীলফামারী দিনাজপুর
কুড়িগ্রাম লালমনিরহাট
পঞ্চগড় ঠাকুরগাঁ
সুনামগঞ্জ কুষ্টিয়া
মাগুরা সাতক্ষীরা
বগুড়া জয়পুরহাট
চাঁপাই নবাবগঞ্জ পাবনা
রাজশাহী সিরাজগঞ্জ