চাকরিজীবী ছেলের ভিখারিনী মা!

০৫:২৮:১৮ বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

সর্বশেষ সংবাদ :

     • ভাগ্যের কি নির্মম পরিহাস! ২৬ দিনেই বিধবা হলেন স্মৃতি     • অবিশ্বাস্যভাবে যা করে প্রাণে বেঁচে গেলেন সার্জেন্ট তপু!     • ‘আমাকে মাটি দিবা না, আমারে ছাড়িয়া তুমি কই গেলা’     • খুব খারাপ লাগছে, এতো মানুষ মারা গেল : মুস্তাফিজ     • চকবাজারে আগুন: সারারাত ঘুমাননি প্রধানমন্ত্রী     • সন্তানসম্ভবা স্ত্রী নামতে পারেননি, তাই নামেননি স্বামীও     • সবকিছু পুড়ে ছাই হলেও অক্ষত চকবাজারের মসজিদ     • ‘কাশ্মিরে জঙ্গি হামলার সময় সিনেমার শ্যুটিংয়ে ব্যস্ত ছিলেন নরেন্দ্র মোদি’     • ‘চোখের সামনে ভাইকে হারিয়েছি, আরও ২৫ জনকে পাচ্ছিনা'     • 'কথা বললেই যদি সমস্যা মিটে যেতো, তাহলে তিনটে বিয়ে কেন করলেন?'

রবিবার, ২৭ মে, ২০১৮, ১০:২৮:১৩

চাকরিজীবী ছেলের ভিখারিনী মা!

চাকরিজীবী ছেলের ভিখারিনী মা!

মো. মঞ্জুরুল আলম মাসুম, বাগাতিপাড়া (নাটোর): ‘ছেলে আমার মস্ত বড়, মস্ত অফিসার, মস্ত ফ্ল্যাটে যায় না দেখা এপার ওপার। নানান রকম জিনিস আর আসবাব দামী দামী, সবচেয়ে কম দামী ছিলাম একমাত্র আমি।’ নচিকেতার সেই বিখ্যাত গানটির কথা অনেকেরই মনে রয়েছে।

গানের সঙ্গে বাস্তব জীবনেও অনেকের মিল খুঁজে পাওয়া যায়। স্বামী মারা যাওয়ার পর ভিক্ষা করেই পাঁচ ছেলে এবং মেয়ে মেয়েকে বড় করেছেন মা নসরান বেওয়া (৬০)। এক ছেলে সরকারি কমিউনিটি ক্লিনিকে চাকরি পেয়েছেন। ছেলের স্ত্রী ইউপি সদস্যা। বাকি ছেলেরা করেন কৃষি কাজ।

কিন্তু ভাগ্য বদলায়নি বাগাতিপাড়া উপজেলার ফাগুয়াড়দিয়াড় ইউনিয়নের ভিক্ষুক মা নসরান বেওয়ার। তিনি রয়ে গেছেন সেই ভিখারিনীই।

ছেলে চাকরি করেন কমিউনিটি ক্লিনিকে, ছেলের বউ ইউপি সদস্য তবুও এক মুঠো ভাত জুটে না তার। ভিক্ষা করেই নসরান বেওয়া জীবনযুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছেন।

অন্যান্য এলাকার মতো মালঞ্চি বাজারে মাঝে মধ্যে লাঠি হাতে নিয়ে ভিক্ষা করতে দেখা যায় নসরান বেওয়াকে। হাত পাতছেন একে অন্যের কাছে। অনেকে আবার তাচ্ছিল করে সরিয়ে দিচ্ছেন। তীব্র গরম যেন তার কাছে কিছুই নয়, যেখানে তীব্র রোদ আর গরমে বের হওয়া কঠিন সেখানে জীবনের তাগিদে ভিক্ষা করে চলছে নসরান বেওয়া। এভাবে সারা দিন ভিক্ষা করে যা আয় হয় তা দিয়ে জীবন চালিয়ে নেন তিনি।

মালঞ্চি বাজারে কথা হয় ভিক্ষুক মা নসরান বেওয়ার সঙ্গে। তিনি বলেন, কোনো মতে জীবন চলছে। বয়স্ক ভাতায় যে কয়টা টাকা পাই তা দিয়ে চিকিৎসা আর পেটে খাওয়া হয় না। মানুষের কাছ থেকে হাত পেতে চেয়ে নিতে হয় টাকা, আর ওই টাকা দিয়েই কোনো মতে চলে সংসার।

তবে এসময় নসরান বেওয়ার চোখে তীব্র আবেগ আর চোখে ছল ছল পানি যেন গড়িয়ে পড়ছে। দুঃখ করে বলেন, তার ছেলে ও ছেলে বৌ তাকে কোনো ভাত কাপড় দেয় না।

তিনি জানান, তিনি ভিক্ষা করেই ছেলেদের পড়া লেখা করিয়েছেন। এর মধ্যে ছেলে রফিকুল ইসলাম কমিউনিটি ক্লিনিকে চাকরি করেন। আর সেই ছেলের বউ ফাগুয়াড়দিয়াড় ইউনিয়নের ইউপি সদস্য। বড় আশা ছিল ছেলে লেখাপড়া শেষ করে চাকরি করে মাকে দেখাশুনা করবে, কিন্তু সে আশা ধুলিসাৎ হয়ে এখন ভিক্ষা করে সংসার চালাতে হচ্ছে।

সারা জীবন শ্রম আর কষ্ট করে সংসার আগলে রেখেছিলেন নসরান বেওয়া। কিন্তু জীবনে একটু সুখের বদলে পেয়েছেন লাঞ্চনা আর বঞ্চনা। জীবনের শেষ সময়ে ভিক্ষাবৃত্তি করে বাঁচার স্বপ্ন দেখছেন বৃদ্ধা মা। ছেলে চাকরি করলেও খোঁজ খবর রাখেন না মায়ের। বৃদ্ধ মায়ের বাস্তব জীবনের এমন গল্প যেন সইবার না।

তবে বৃদ্ধ নসরান বেওয়ার জীবন কাহিনীর গল্প হয়তো একদিন শেষ হয়ে যাবে, কিন্তু যে ঘৃণা নিয়ে পৃথিবী ছেড়ে চলে যাবে, সেটা কী কখনও শুধরাতে পারবে নসরান বেওয়ার ছেলেরা।

সারা জীবন অপরাধ বোধ নিয়ে বেঁচে থাকতে হবে ক্ষণিকের এই পৃথিবীতে। আর যেন নসরান বেওয়ার মতো জীবনযুদ্ধে কাউকে নামতে না হয় এমন প্রত্যাশাই যেন সবার।

এ ব্যাপারে তার ছেলে রফিকুল ইসলাম বলেন, মাকে আমরাই দেখাশুনা করি। কিন্তু মাঝে মধ্যে কথা না শুনে বাইরে গিয়ে মানুষের নিকট হাত পাতেন। মায়ের এই হাত পেতে অন্যের টাকা নেয়াটা আমরা পছন্দ করি না। আবার কিছু করতেও পারি না।
এমটিনিউজ২৪.কম/এইচএস/কেএস 



খেলাধুলার সকল খবর »

ইসলাম


ইসলাম সকল খবর »

এক্সক্লুসিভ নিউজ


পৃথিবীর সবচেয়ে বড় পরিবার : ৩৯ জন স্ত্রীর সাথে বসবাস করেন একজন স্বামী!

পৃথিবীর-সবচেয়ে-বড়-পরিবার-৩৯-জন-স্ত্রীর-সাথে-বসবাস-করেন-একজন-স্বামী-

সামরিক শক্তির বিচারে পাকিস্তানের চেয়ে কতটা এগিয়ে ভারত? দেখে নিন..

সামরিক-শক্তির-বিচারে-পাকিস্তানের-চেয়ে-কতটা-এগিয়ে-ভারত--দেখে-নিন

বাইক থেকে ছিটকে ফ্লাইওভার থেকে নীচে পড়লো যুবতী, অতঃপর..

বাইক-থেকে-ছিটকে-ফ্লাইওভার-থেকে-নীচে-পড়লো-যুবতী-অতঃপর এক্সক্লুসিভ সকল খবর »

সর্বাধিক পঠিত


সংঘর্ষ বাধে, আরেকটি দুঃসংবাদ এল ভারতে

ভারতের চোখ উপড়ে ফেলা হবে, কোনো মন্দিরে ঘণ্টা বাজবে না-হুমকি পাক মন্ত্রীর

ভারতকে চাপে রাখতে পাকিস্তানকে অত্যাধুনিক যুদ্ধজাহাজ দিচ্ছে চীন

পাল্টা হামলা চালানোর হুঙ্কার ইমরান খানের

পাঠকই লেখক


চোখের সামনে এমন ঘটনা মেনে নেওয়া যায় না!

চোখের-সামনে-এমন-ঘটনা-মেনে-নেওয়া-যায়-না-

অভাগার গরু মরে, ভাগ্যবানের বউ চাকরি করে!

অভাগার-গরু-মরে-ভাগ্যবানের-বউ-চাকরি-করে-

প্রেশার বেড়ে ঘাড় ব্যথা হলে তৎক্ষণাৎ যা করবেন

প্রেশার-বেড়ে-ঘাড়-ব্যথা-হলে-তৎক্ষণাৎ-যা-করবেন পাঠকই সকল খবর »

জেলার খবর


ঢাকা ফরিদপুর
গাজীপুর গোপালগঞ্জ
জামালপুর কিশোরগঞ্জ
মাদারীপুর মানিকগঞ্জ
মুন্সিগঞ্জ ময়মনসিংহ
নারায়ণগঞ্জ নরসিংদী
নেত্রকোনা রাজবাড়ী
শরীয়তপুর শেরপুর
টাঙ্গাইল ব্রাহ্মণবাড়িয়া
কুমিল্লা চাঁদপুর
লক্ষ্মীপুর নোয়াখালী
ফেনী চট্টগ্রাম
খাগড়াছড়ি রাঙ্গামাটি
বান্দরবান কক্সবাজার
বরগুনা বরিশাল
ভোলা ঝালকাঠি
পটুয়াখালী পিরোজপুর
বাগেরহাট চুয়াডাঙ্গা
যশোর ঝিনাইদহ
খুলনা মেহেরপুর
নড়াইল নওগাঁ
নাটোর গাইবান্ধা
রংপুর সিলেট
মৌলভীবাজার হবিগঞ্জ
নীলফামারী দিনাজপুর
কুড়িগ্রাম লালমনিরহাট
পঞ্চগড় ঠাকুরগাঁ
সুনামগঞ্জ কুষ্টিয়া
মাগুরা সাতক্ষীরা
বগুড়া জয়পুরহাট
চাঁপাই নবাবগঞ্জ পাবনা
রাজশাহী সিরাজগঞ্জ