৫৮ বছরে এবার সর্বোচ্চ লবণ উৎপাদন, কোনো ধরনের ঘাটতি নেই

০৮:৪৮:০২ বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯

সর্বশেষ সংবাদ :

     • অল্পের জন্য বড় দুর্ঘ'টনা থেকে র'ক্ষা পেল রাজশাহীগামী একটি ট্রেন     • সু চির মিথ্যা বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করেছে আসিয়ান পার্লামেন্টের সদস্যরা     • সানিয়া মির্জার বোনকে বিয়ে করলেন আজহারউদ্দিনের ছেলে     • রূপপুর বালিশকাণ্ডে প্রকৌশলী মাসুদুল আলমসহ ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে দুদক     • ছোট্ট এই মেয়েটিকে প্রধানমন্ত্রী বানাতে প্রচার করবেন ভারতের নারীকল্যাণ মন্ত্রী     • ৬ ডিসেম্বর, সৃজিত-মিথিলার মিলনের দিনটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ও অর্থবহ: তসলিমা     • খেলার মাঝে শিশুকে দুধ পান করিয়ে ফের মাঠে ফিরলেন খেলোয়াড় মা     • ভায়া'গ্রা মেশানো পানি খেয়ে তাণ্ড'ব চালাচ্ছে ৮০ হাজার ভেড়া     • মানুষের জন্য প্রয়োজনে হিরো থেকে জিরো হবো: ইলিয়াস কাঞ্চন     • টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত খুলনার

বুধবার, ২০ নভেম্বর, ২০১৯, ১১:০৮:৫২

৫৮ বছরে এবার সর্বোচ্চ লবণ উৎপাদন, কোনো ধরনের ঘাটতি নেই

৫৮ বছরে এবার সর্বোচ্চ লবণ উৎপাদন, কোনো ধরনের ঘাটতি নেই

কক্সবাজার: দেশে লবণের বাজার স্বাভাবিক রয়েছে, কোনো ধরনের ঘাটতি নেই। এছাড়া নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহ থেকে শুরু হয়েছে লবণের মৌসুম। কক্সবাজারের উপকূলীয় এলাকাগুলোতে লবণ উৎপাদন হচ্ছে। গত মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৮ লাখ মেট্রিক টন। বিপরীতে উৎপাদন হয়েছে ১৮ লাখ ২৪ হাজার মেট্রিক টন। যা বিগত ৫৮ বছরের লবণ উৎপাদনের রেকর্ড ছাড়িয়েছে। গেল মৌসুমের উদ্বৃত্ত প্রায় ৬ লাখ মেট্রিক টন লবণ দিয়ে আরও অন্তত দুই মাস চলবে।

মঙ্গলবার দুপুরে বাংলাদেশ লবণ মিল মালিক সমিতির সাধারণ সভায় মিল মালিকরা এসব কথা জানান। লবণ মিল মালিকরা আরও বলেন, অসাধু ব্যবসায়ীরা লবণের কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে দাম বৃদ্ধির অপচেষ্টায় লিপ্ত। লবণের কেজি ১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে অপপ্রচার চালিয়ে স্বয়ংসম্পূর্ণ লবণ শিল্পকে ধ্বংসের অপচেষ্টা চালানো হচ্ছে। অপপ্রচারকারীদের চিহ্নিত করে দ্রুত আইনের আওতায় আনারও দাবি জানান তারা।

শহরের তারকা হোটেল সি-প্যালেসের হল রুমে অনুষ্ঠিত সভায় মিল মালিক সমিতির সভাপতি নুরুল কবির বলেন, বর্তমানে কক্সবাজারে তিন লাখ মেট্রিক টনের ওপরে লবণ উদ্বৃত্ত রয়েছে। সারাদেশের মোকামগুলোতে রয়েছে আরও প্রায় তিন লাখ মেট্রিক টন লবণ। এরপরও অসাধু কিছু মিল মালিক মানব স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর সোডিয়াম সালফেট বাজারে সয়লাব করছে। বন্ড লাইসেন্স, কাস্টিং সল্ট ইত্যাদি নামে লবণ আমদানি করছিল একটা শ্রেণি। আমাদের কঠোরতায় ওই রকম লবণ আমদানি বন্ধ করতে সক্ষম হয়েছি।

লবণের জাতীয় চাহিদা নিরূপণে সবাইকে এক টেবিলে বসতে হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা লবণ ব্যবসায়ী ঐক্যবদ্ধ হলে এই শিল্পকে বাঁচানো সম্ভব। ঘরের সমস্যা ঘরেই সমাধান করা দরকার।

সভায় আরও বক্তব্য রাখেন সমিতির সহ-সভাপতি মোতাহেরুল ইসলাম, আফতাব হোসেন, মাস্টার আব্দুল কাদের, এম কায়সার ইদ্রিস, মো. ফজলুল হক, ওমর ফারুক মিঠু, সাজ্জাদ হোসেন চৌধুরী প্রমুখ।

সভায় সমিতির কার্যনির্বাহী সদস্য মো. আবু হানিফ ভুঁইয়া, মো. শহিদুজ্জামান শরিফ, মো. কামাল দেওয়ান, মো. আবুল কালাম আজাদ, হাজি এস এম ইজ্জত আলী, মীর আহম্মদ, সাদেক মোহাম্মদ, এম এ তাহের, গাজী সাব্বির আহমদ, অহিদুস সামাদ হেলাল, মো. কুতুব উদ্দিন, ফরিদুল ইসলাম, শেখ ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী, অছিয়র রহমান চেয়ারম্যান, জাফর আহম্মদ, মো. মো. কামাল শরীফসহ ঝালাকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, নারায়ণগঞ্জ, চট্টগ্রাম, পটিয়াসহ সারাদেশের মোকাম থেকে আসা দেড়শতাধিক মিল মালিক উপস্থিত ছিলেন।

মিল মালিকরা বলেন, আয়োডিনের সর্বোচ্চ দাম এক হাজার থেকে ১২০০ টাকা হওয়া দরকার। কিন্তু আমাদের কিনতে হচ্ছে ৩০০০ টাকা পর্যন্ত দামে। আয়োডিনের দাম কমানো প্রয়োজন।

মিল মালিকদের দাবি, কালোবাজারি, উৎপাদিত লবণের ন্যায্য মূল্য না পাওয়া ও বিষাক্ত সোডিয়াম সালফেটের কারণে ধ্বংস হচ্ছে দেশীয় লবণ শিল্প। মাঠে ও মিলে পড়ে রয়েছে অন্তত ৬ লাখ মেট্রিকটন অবিক্রিত লবণ। কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে কালোবাজারিদের লবণ আমদানির কারণে দেশীয় লবণ খাত মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারছে না। পিছিয়ে যাচ্ছে দেশের এই গুরুত্বপূর্ণ খাত। দরপতন অব্যাহত থাকলে সামনের মৌসুমে লবণ চাষিরা মাঠে যাবে কি-না সন্দেহ রয়েছে।

সূত্র জানায়, অপরিশোধিত লবণ পরিশোধনের পর খাবার উপযুক্ত ও বাজারজাত করতে কেজিতে সর্বোচ্চ ১ থেকে দেড় টাকা খরচ পড়বে। সে হিসেবে এক কেজি লবণের দাম হওয়ার কথা সাড়ে ৫ টাকার নিচে। কিন্তু বাজারে ভোক্তারা কিনছে প্রায় ৪০ টাকায়। লবণ চাষিদের অবহেলা, রাঘববোয়াল ও শিল্প কারখানার মালিকদের প্রতি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের ‘দরদি মনোভাব’-এর কারণে এমনটি হচ্ছে বলে ধারণা সংশ্লিষ্টদের।

বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশন (বিসিক) কক্সবাজারের লবণ শিল্প উন্নয়ন প্রকল্প কার্যালয় সূত্র জানায়, ২০১৯-২০ মৌসুমে বিসিকের চাহিদা ১৮ লাখ ৪৯ হাজার মেট্রিক টন। লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৮ লাখ ৫০ হাজার মেট্রিক টন। ২০১৮-১৯ মৌসুমে কক্সবাজার জেলায় উৎপাদনযোগ্য লবণ জমির পরিমাণ ছিল ৬০ হাজার ৫৯৬ একর। চাষির সংখ্যা ২৯ হাজার ২৮৭ জন। এই মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৮ লাখ মেট্রিক টন। বিপরীতে উৎপাদন হয়েছে ১৮ লাখ ২৪ হাজার মেট্রিক টন। যা বিগত ৫৮ বছরের লবণ উৎপাদনের রেকর্ড ছাড়িয়েছে।



খেলাধুলার সকল খবর »

ইসলাম


ওয়াজ মাহফিল যেন কারো কষ্টের কারণ না হয়

ওয়াজ-মাহফিল-যেন-কারো-কষ্টের-কারণ-না-হয়

ইউরোপের পর এবার আমেরিকায়ও ব্যাপক জনপ্রিয় নাম ‘মুহাম্মাদ!

ইউরোপের-পর-এবার-আমেরিকায়ও-ব্যাপক-জনপ্রিয়-নাম-‘মুহাম্মাদ-

মহাকাশ নিয়ে কোরআনের বিস্ময়কর ১০ তথ্য

মহাকাশ-নিয়ে-কোরআনের-বিস্ময়কর-১০-তথ্য ইসলাম সকল খবর »

এক্সক্লুসিভ নিউজ


এবার পিয়াজ ছাড়া রান্নায় বাজারে এল পিয়াজের পাউডার!

এবার-পিয়াজ-ছাড়া-রান্নায়-বাজারে-এল-পিয়াজের-পাউডার-

৮টি খাবার কখনোই খালি পেটে খাবেন না

৮টি-খাবার-কখনোই-খালি-পেটে-খাবেন-না

খেজুরের ১১ অসাধারণ ঔষধি গুণাগুণ

খেজুরের-১১-অসাধারণ-ঔষধি-গুণাগুণ এক্সক্লুসিভ সকল খবর »

সর্বাধিক পঠিত


৮টি খাবার কখনোই খালি পেটে খাবেন না

মেসির বাড়ি খুঁজে বের করে একি করলেন বাংলাদেশি তরুণ!

ওয়াজ মাহফিল যেন কারো কষ্টের কারণ না হয়

ইমরুল কায়েসের অসাধারণ ব্যাটে উদ্বোধনী ম্যাচে চট্টগ্রামের জয়

বিচিত্র জগৎ


নিজের দেওয়া উপহারেই ধরা খেলেন বান্ধবীর কাছে!

নিজের-দেওয়া-উপহারেই-ধরা-খেলেন-বান্ধবীর-কাছে-

অবশেষে হাসপাতালে গর্ভবতী স্ত্রীর জন্য স্বামী নিজেই হয়ে যান চেয়ার!

অবশেষে-হাসপাতালে-গর্ভবতী-স্ত্রীর-জন্য-স্বামী-নিজেই-হয়ে-যান-চেয়ার-

চা না খেয়ে দিনের কাজ শুরু করে না এই ঘোড়া!

চা-না-খেয়ে-দিনের-কাজ-শুরু-করে-না-এই-ঘোড়া- বিচিত্র জগতের সকল খবর »

জেলার খবর


ঢাকা ফরিদপুর
গাজীপুর গোপালগঞ্জ
জামালপুর কিশোরগঞ্জ
মাদারীপুর মানিকগঞ্জ
মুন্সিগঞ্জ ময়মনসিংহ
নারায়ণগঞ্জ নরসিংদী
নেত্রকোনা রাজবাড়ী
শরীয়তপুর শেরপুর
টাঙ্গাইল ব্রাহ্মণবাড়িয়া
কুমিল্লা চাঁদপুর
লক্ষ্মীপুর নোয়াখালী
ফেনী চট্টগ্রাম
খাগড়াছড়ি রাঙ্গামাটি
বান্দরবান কক্সবাজার
বরগুনা বরিশাল
ভোলা ঝালকাঠি
পটুয়াখালী পিরোজপুর
বাগেরহাট চুয়াডাঙ্গা
যশোর ঝিনাইদহ
খুলনা মেহেরপুর
নড়াইল নওগাঁ
নাটোর গাইবান্ধা
রংপুর সিলেট
মৌলভীবাজার হবিগঞ্জ
নীলফামারী দিনাজপুর
কুড়িগ্রাম লালমনিরহাট
পঞ্চগড় ঠাকুরগাঁ
সুনামগঞ্জ কুষ্টিয়া
মাগুরা সাতক্ষীরা
বগুড়া জয়পুরহাট
চাঁপাই নবাবগঞ্জ পাবনা
রাজশাহী সিরাজগঞ্জ