নির্বাচন কমিশন থেকে প্রত্যাহার হওয়া মান্নান এবার পরিকল্পনামন্ত্রী

০১:২০:২৬ মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সর্বশেষ সংবাদ :

     • ভারতের বিপক্ষে পাঁচটি ওয়ানডে এবং শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুটি টেস্ট ও তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ!     • পরিচয় গোপন করে চিকিৎসা নিতে গিয়ে বাস্তবতা দেখলেন ম্যাজিস্ট্রেট!     • রশিদ খানের মতো এক লেগ স্পিনারের সন্ধান পেল বাংলাদেশ!     • বাংলাদেশের মানুষ আমাদের খুব সম্মান করে: রশিদ খান     • আফ্রিদি হচ্ছেন পাকিস্তানের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী!     • প্রিয়নবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) .-এর পছন্দের ১২টি খাবার ও তার গুণাবলী     • কাউকে ছাড় নয়, সবার আমলনামা আমার কাছে আছে : প্রধানমন্ত্রী     • হা'মলার জবাব দিতে প্রস্তুত সৌদি আরব     • বিশ্বনবির জন্মদিন, ১২ রবিউল আউয়াল সরকারি ছুটি ঘোষণা করেছে আরব আমিরাত     • আগামী ছয় মাসের মধ্যেই শক্তিশালী টি-টোয়েন্টি দল হবে বাংলাদেশ: নান্নু

সোমবার, ০৭ জানুয়ারী, ২০১৯, ১০:৪৩:২৮

নির্বাচন কমিশন থেকে প্রত্যাহার হওয়া মান্নান এবার পরিকল্পনামন্ত্রী

নির্বাচন কমিশন থেকে প্রত্যাহার হওয়া মান্নান এবার পরিকল্পনামন্ত্রী

সুনামগঞ্জ : আওয়ামী লীগ থেকে টানা তৃর্তীয়বার নির্বাচিত সুনামগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ এম এ মান্নান এবার পরিকল্পনামন্ত্রী হয়েছেন। এর আগে তিনি অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ছিলেন।

১৯৪৬ সালে সুনামগঞ্জ জেলার দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার ডুংরিয়া গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন এম এ মান্নান। তিনি গ্রামের স্কুলে তার প্রাথমিক শিক্ষা সমাপ্ত করেন এবং সারগোদায় অবস্থিত পাকিস্তান এয়ারফোর্স স্কুল থেকে ও লেভেল সমাপ্ত করেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জনের পর ১৯৭৪ সালে তদানীন্তন সিএসপি ক্যাডারে যোগদান করেন এবং জেলা প্রশাসক কিশোরগঞ্জ, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রামসহ বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যুগ্ম সচিব, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক এবং এনজিও ব্যুরোতে মহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
তিনি ইকোনমিক মিনিস্টার হিসেবে জেনেভায় অবস্থিত বাংলাদেশের স্থায়ী মিশনের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান হিসেবে ২০০৩ সালে সরকারি চাকরি থেকে অবসর গ্রহণ করেন।

এম এ মান্নান ২০০৫ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগে যোগদান করেন এবং ২০০৮ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে সাংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। নবম জাতীয় সংসদে তিনি পাবলিক অ্যাকাউন্টস সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। পাশাপাশি তিনি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, অর্থ মন্ত্রণালয়, এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন যেখানে তিনি প্রধানমন্ত্রীর প্রতিনিধিত্ব করতেন। তিনি ২০১০ এবং ২০১৩ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন।

এমএ মান্নান বিবাহিত, তার স্ত্রী জুলেখা মান্নান ঢাকা উইমেন্স কলেজের একজন শিক্ষিকা। তার মেয়ে সারা একজন চিকিৎসক। তিনি স্বামীর সঙ্গে আমেরিকায় বসবাস করছেন। তার ছেলে শাদাত ব্রিটেনে অবস্থিত বার্কলেইস ক্যাপিটাল ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং লন্ডনে বসবাস করছেন।

তাছাড়া মান্নান ডেভেলপমেন্ট লিটারেচার এ আগ্রহী এবং বাংলাদেশের গ্রামীণ জনগণের কল্যাণে কাজ করছেন। সর্বশেষ ২০১৪ সালে তিনি বাংলাদেশ সরকারের অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

এম এ মান্নানকে ২০০১ সালে নির্বাচনে নির্বাচন কমিশনে পদায়ন করা হয়। বিএনপি নেতৃবৃন্দ ওই সময় কথা ওঠান ৯৬ এর নির্বাচনে তাদের ক্ষতি করেছেন এমএ মান্নান। দুই সপ্তাহের মাথায় তাকে নির্বাচন কমিশন থেকে প্রত্যাহার করা হয়। এর মধ্যেই তত্ত্বাবধায়ক সরকার দায়িত্ব নেয়। এমএ মান্নানকে বিসিকের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেয়া হয়। নির্বাচন হয়। নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পরাজয় হয়।

২০০৫ সালে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশেই আওয়ামী লীগে যোগদান করেন এমএ মান্নান। ২০০৬ এর জাতীয় নির্বাচনে দলের মনোনয়ন দেয়া হয় তাকে। ওই সময় ৩০০ আসনেই আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্যরা পদত্যাগ করেন। ২০০৮ সালে আবার আওয়ামী লীগ নির্বাচনে গেলে এমএ মান্নানকে মনোনয়ন দেওয়া হয়। বিশাল ভোটের ব্যবধানে ওই নির্বাচনে জয়ী হন তিনি।

২০০৯ সালে দলের কাউন্সিলে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য করা হয় এমএ মান্নানকে। ওই বছরেই প্রতিরক্ষা, জনপ্রশাসন ও অর্থ মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ সংসদীয় কমিটিতে যুক্ত করাসহ সরকারের ৩ বছরের মাথায় পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটির চেয়ারম্যান করা হয় তাকে। ৩ বছর পর আরেকবার দলের কাউন্সিলে তাকে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রাখা হয়। সুনামের সঙ্গে দলীয় প্রধানের দেয়া দায়িত্ব পালন করেন এমএ মান্নান।

২০১৪ সালের নির্বাচনে আবার দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয় তাকে। ওই নির্বাচনেও বিপুল ভোটে জয়লাভ করেন সজ্জন এই রাজনীতিবিদ। নির্বাচনের পর প্রথমে তাকে অর্থ প্রতিমন্ত্রী, এক মাসের মাথায় পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীরও দায়িত্ব দেয়া হয়। সরকারের ৫ বছরের শাসনামলে নিজের জেলায় আরও বেশি জনপ্রিয় হতে থাকেন তিনি।

অন্যদিকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এমএ মান্নান তার প্রতিদ্বন্দ্বী জমীয়তে উলামায়ে বাংলাদেশ ও ২০ দলীয় জোট মনোনীত প্রার্থী শাহীনূর পাশা চৌধুরীর চেয়ে এক লাখ ১০ হাজার ২২৪ ভোট বেশি পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। প্রাপ্ত ভোটের মধ্যে এমএ মান্নান পেয়েছেন এক লাখ ৬৩ হাজার ১৪৯ ভোট।-জাগো নিউজ



খেলাধুলার সকল খবর »

ইসলাম


মহান আল্লাহ তাআলা যেসব কাজে প্রতিযোগিতা করতে বলেছেন

মহান-আল্লাহ-তাআলা-যেসব-কাজে-প্রতিযোগিতা-করতে-বলেছেন

সৌদি আরবে কোরআন প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় হয়েছে বাংলাদেশের শিশু হাফেজ শিহাব উল্লাহ

সৌদি-আরবে-কোরআন-প্রতিযোগিতায়-দ্বিতীয়-হয়েছে-বাংলাদেশের-শিশু-হাফেজ-শিহাব-উল্লাহ

জেনে নিন, যাদের দোয়া কবুল হয়, অনেকের কেন হয় না?

জেনে-নিন-যাদের-দোয়া-কবুল-হয়-অনেকের-কেন-হয়-না- ইসলাম সকল খবর »

এক্সক্লুসিভ নিউজ


৪০-৪৫ বছর ধরে কাচ চিবিয়ে খেয়ে দিব্যি বেঁচে আছেন এই ব্যক্তি

৪০-৪৫-বছর-ধরে-কাচ-চিবিয়ে-খেয়ে-দিব্যি-বেঁচে-আছেন-এই-ব্যক্তি

কাশ্মীরে এক গ্রামের নাম বাংলাদেশ

কাশ্মীরে-এক-গ্রামের-নাম-বাংলাদেশ

মোবাইল ফোনকে টিভি রিমোট বানানোর সহজ উপায়

মোবাইল-ফোনকে-টিভি-রিমোট-বানানোর-সহজ-উপায় এক্সক্লুসিভ সকল খবর »

সর্বাধিক পঠিত


মাঠের মধ্য সাকিব ও রশিদের কথা-কাটাকাটির কারণ জানালেন মুজিব উর রহমান

ম্যাচসেরা হয়ে বাংলাদেশ দলের দুইজনের প্রশংসা করলেন নবী

টি-টুয়েন্টি দল থেকে বাদ সৌম্যসহ ৪ ক্রিকেটার

আফগানিস্তানের কাছে হেরে যাকে দুষলেন সাকিব

পাঠকই লেখক


ছাগল চুরির ৪১ বছর পর ধরা পড়লো চোর!

ছাগল-চুরির-৪১-বছর-পর-ধরা-পড়লো-চোর-

মহাকাশে সিমেন্ট গুলছে নাসার বিজ্ঞানিরা, চাঁদে বানানো হবে বাড়ি

মহাকাশে-সিমেন্ট-গুলছে-নাসার-বিজ্ঞানিরা-চাঁদে-বানানো-হবে-বাড়ি

গুজব নয়, সত্যিই আকাশ থেকে যেখানকার রাস্তা-ঘাট, বাড়ির সামনে, ছাদে পড়ে থাকে লাখ লাখ মাছ!

গুজব-নয়-সত্যিই-আকাশ-থেকে-যেখানকার-রাস্তা-ঘাট-বাড়ির-সামনে-ছাদে-পড়ে-থাকে-লাখ-লাখ-মাছ- পাঠকই সকল খবর »

জেলার খবর


ঢাকা ফরিদপুর
গাজীপুর গোপালগঞ্জ
জামালপুর কিশোরগঞ্জ
মাদারীপুর মানিকগঞ্জ
মুন্সিগঞ্জ ময়মনসিংহ
নারায়ণগঞ্জ নরসিংদী
নেত্রকোনা রাজবাড়ী
শরীয়তপুর শেরপুর
টাঙ্গাইল ব্রাহ্মণবাড়িয়া
কুমিল্লা চাঁদপুর
লক্ষ্মীপুর নোয়াখালী
ফেনী চট্টগ্রাম
খাগড়াছড়ি রাঙ্গামাটি
বান্দরবান কক্সবাজার
বরগুনা বরিশাল
ভোলা ঝালকাঠি
পটুয়াখালী পিরোজপুর
বাগেরহাট চুয়াডাঙ্গা
যশোর ঝিনাইদহ
খুলনা মেহেরপুর
নড়াইল নওগাঁ
নাটোর গাইবান্ধা
রংপুর সিলেট
মৌলভীবাজার হবিগঞ্জ
নীলফামারী দিনাজপুর
কুড়িগ্রাম লালমনিরহাট
পঞ্চগড় ঠাকুরগাঁ
সুনামগঞ্জ কুষ্টিয়া
মাগুরা সাতক্ষীরা
বগুড়া জয়পুরহাট
চাঁপাই নবাবগঞ্জ পাবনা
রাজশাহী সিরাজগঞ্জ