শনিবার, ১৪ মে, ২০২২, ০৯:৫৯:২৩

তরমুজের ক্রেতা নেই, কেউ ফেলছেন ডাস্টবিনে-কেউ নদীতে!

তরমুজের ক্রেতা নেই, কেউ ফেলছেন ডাস্টবিনে-কেউ নদীতে!

এমটি নিউজ ডেস্ক : গত রমজান মাসে সারাদেশের ন্যায় সিলেটেও তরমুজের দাম ছিল চড়া। দাম এতোটাই বেশি ছিলো যে, নিম্নবিত্ত থেকে শুরু করে মধ্যবিত্তরাও তরমুজ কেনা থেকে দূরে ছিলেন। কম দামে তরমুজ ছাড়েননি ব্যবসায়ীরা।

তবে মাত্র ২০ দিনের ব্যবধানে সেই তরমুজ ব্যবসায়ীদের গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

জানা গেছে, রমজান শুরুর প্রথম দিকে সিলেটে কেজি দরে তরমুজ বিক্রি হয়েছিল। ব্যবসায়ীরা ৪০-৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রিও করেছিলেন। কিন্তু ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান শুরু করলে তারা তরমুজ পিস হিসেবে বিক্রি করেন। পুরো রমজানেই ৩০০ টাকার তরমুজ যেখানে ৬০০ টাকা  বিক্রি হয়েছিল, সেখানে এখন ২০০ টাকা দিয়েও তরমুজ কিনছেন না সাধারণ ক্রেতারা। ফলে তরমুজ নিয়ে বিপাকে পড়েছেন আড়ৎদাররা।

সরেজমিনে শনিবার (১৪ মে) সিলেট নগরীর অন্যতম পাইকারি ফলের বাজার কদমতলীতে গিয়ে দেখা যায়, আড়ৎদাররা তরমুজের পসরা সাজিয়ে বসে আছেন। তবে কিনছেন না পাইকাররা। এতে লোকসানের মুখে পড়েছেন তারা। 

মার্কেটের বিভিন্ন দোকানে অন্তত কোটি টাকার তরমুজ নষ্ট হওয়ার পথে রয়েছে। অনেক তরমুজে পচন ধরতে শুরু করেছে। আবার নষ্ট হওয়া তরমুজ নিয়েও বিপাকে পড়েছেন আড়ৎদাররা। কেউ কেউ এ সব তরমুজ ফেলছেন ডাস্টবিনে। আবার কেউ কেউ ফেলে দিচ্ছেন সুরমা নদীতে।

ফল মার্কেটের আড়ৎদার আখরই মিয়া বলেন, আমি গত সপ্তাহে প্রায় ৫ লাখ টাকার তরমুজ কিনেছিলাম। পাইকারদের আগ্রহ না থাকায় এখন বেশ লোকসানে পড়েছি। কম দামে অফার দিয়েও বিক্রি করতে পারছি না। লোকসানে অনেক পিস তরমুজ বিক্রি করেছি।

একই আড়তের আরেক ব্যবসায়ী জমির মিয়া বলেন, ঈদের পর থেকেই তরমুজ বিক্রিতে ভাটা পড়েছে। মাত্র দুই সপ্তাহে ক্রেতাদের আগ্রহ কমে যাওয়ায় আমরা বেশ লোকসানে পড়ে গেছি।

নগরীর রিকাবী বাজারের খুচরা ফল ব্যবসায়ী লাহিন মিয়া বলেন, ঈদের পর আমি ৮০ হাজার টাকার তরমুজ কিনেছিলাম। এই তরমুজ কেনার পর থেকে সিলেটে মুষলধারে বৃষ্টি হয়েছে। এতে তরমুজে মানুষের আগ্রহ কমে গেছে। 

৮০ হাজার টাকার তরমুজে যেখানে আমার লাভ হওয়ার কথা ছিল কয়েক হাজার টাকা, সেখানে আমি প্রায় ৩৫ হাজার টাকা লোকসানে পড়েছি। আর তরমুজ বিক্রি করবেন না বলেও জানান তিনি।

সিলেট নগরীর মধুশহীদ এলাকার বাসিন্দা জাহেদ আহমদ রুবেল বলেন, পরিবারে চাহিদা থাকায় আমি রমজানে একটি তরমুজ কিনেছিলাম ৪০০ টাকায়। ওই সময় যে সাইজের তরমুজ কিনেছিলাম তা এখন বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে দেড়শ টাকার মধ্যে।

সিলেট নগরীর আরেক বাসিন্দা নিজাম উদ্দিন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, রমজানে অনেক গরম পড়েছিল। কিন্তু ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের কবলে পড়ে আমার মতো অনেকেই তরমুজ কিনতে পারেননি। রমজানের গরমে যখন তরমুজ কিনতে পারিনি, তখন বৃষ্টির দিনে তরমুজ কেন কিনব। এতে অন্তত ব্যবসায়ীদের শিক্ষা হবে। ঢাকা পোস্ট

এমটিনিউজ২৪.কম এর খবর পেতে ডান দিকের স্টার বাটনে ক্লিক করে গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি ফলো করুন!

Follow করুন এমটিনিউজ২৪ গুগল নিউজ, টুইটার , ফেসবুক এবং সাবস্ক্রাইব করুন এমটিনিউজ২৪ ইউটিউব চ্যানেলে

aditimistry hot pornblogdir sunny leone ki blue film
indian nude videos hardcore-sex-videos s
sexy sunny farmhub hot and sexy movie
sword world rpg okhentai oh komarino
thick milf chaturb cum memes