আতর হওয়া একটি প্রাপ্ত বয়স্ক আগর গাছের মূল্য ২০-২৫ লাখ টাকা, চাষাবাদ ও উৎপাদন কৌশল

১০:১০:০৮ শুক্রবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২০

সর্বশেষ সংবাদ :

     • নরেন্দ্র মোদি কি ভারতীয় নাগরিক? তথ্য অধিকার আইনে প্রমাণ চেয়ে আবেদন!     • নায়িকাদের কষ্ট দূর করতে তাদের বিয়ে করতে চান হিরো আলম     • ইরফানের ঝড়ো ফিফটি, ফাইনাল ম্যাচে রাজশাহীর চ্যালে'ঞ্জিং স্কোর     • রাতে বিয়ে, পরেরদিনই আইসিইউতে সেই প্রবীণ অভিনেতা     • ইরানের হা'মলায় মস্তিষ্ক স'মস্যায় ভু'গছে মার্কিন সেনারা : চিকিৎসা চলছে জার্মানিতে     • ভারতের হাতে আসছে ভ'য়'ঙ্কর মিসাইল সিস্টেম     • নিজের বিয়ের আসরেই পৌঁছাতে পারলেন না ভারতীয় সেনা     • ভারতের হোটেল থেকে আসমা বেগম নামে এক বাংলাদেশি নারীর ম'রদেহ উ'দ্ধার     • নতুন প্রেমে মজেছেন সিদ্দিকুরের সাবেক স্ত্রী মিম!     • বিপিএল ফাইনালে টস জিতে ফিল্ডিংয়ে খুলনা, ব্যাটিংয়ে লিটন ও আফিফ

মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৯, ০২:৫৫:২৮

আতর হওয়া একটি প্রাপ্ত বয়স্ক আগর গাছের মূল্য ২০-২৫ লাখ টাকা, চাষাবাদ ও উৎপাদন কৌশল

আতর হওয়া একটি প্রাপ্ত বয়স্ক আগর গাছের মূল্য ২০-২৫ লাখ টাকা, চাষাবাদ ও উৎপাদন কৌশল

এক্সক্লুসিভ ডেস্ক : বর্তমানে দেশে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে শুধু সিলেটের মৌলভীবাজারের বড়লেখায় আগর চাষ করা হয়। আগর গাছ উঞ্চমণ্ডলীয় চিরসবুজ বনাঞ্চলের বৃক্ষ জাতীয় উদ্ভিদ। এটি সাধারণত লম্বায় ৪০ মিটার হয়। এর পরিধি ও বেড় আড়াই মিটার পর্যন্ত হতে পারে। আগর গাছের কা'ণ্ড একনলা ও সোজা হয়ে থাকে। এ গাছটি খুব তাড়াতাড়ি বাড়ে। দক্ষিণ ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার প্রায় প্রতিটি দেশে আগর গাছ জন্মায়।

সব আগর গাছে আতর থাকে না। বিশেষ ধরনের আগর সম্পর্কে অভিজ্ঞ যে কোনো ব্যক্তি গাছ দেখে বুঝতে পারেন এই গাছে আতর পাওয়া যাবে কি-না। আবার আগর গাছে লোহার পেরেক মে'রে ব্যাকটেরিয়া সৃষ্টির মাধ্যমে গাছে আতর আনার একটি পদ্ধ'তিও রয়েছে। আতর হওয়া একটি গাছ ৫-১০ লাখ এমনকি ২০-২৫ লাখ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়ে থাকে।

এবার জেনে নেওয়া যাক আগর গাছের প্রকৃতি, চাষাবাদ ও উৎপাদন কৌ'শল-

আগর গাছের পরিচিতি:
আগর মূলত একটি গাছের নাম। আগর শব্দের আভিধানিক অর্থ হলো উৎকৃষ্ট বা সুগন্ধি বিশিষ্ট কাঠ। ইংরেজিতে এর নাম এলো ওড (Aloe Wood বা Wagle Wood), আরবিতে বলে উদ, দক্ষিণ এশিয়ায় পরিচিত নাম গাডরউদ, মালয়েশিয়ান ভাষায় গাহারু বলে পরিচিত ও সমা'দৃত। বাংলা, আরবি এবং ফারসিসহ বিভিন্ন ভাষার সংমি'শ্রণে অপভ্রং'শ হয়ে আগর নামটির উৎপ'ত্তি হয়েছে।

পৃথিবীতে কবে কোথায় আগর-আতরের চাষাবাদ শুরু হয়েছে তার সঠিক ইতিহাস বের করা মুশ'কিল। তবে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার রেইন ফরেস্টই আগর গাছের আদিস্থান হিসেবে ইতিহাসে স্থান করে নিয়েছে। আগর গাছ থেকে বিশেষ কালো রঙের কাঠ পাওয়া যায়, যা আগর কাঠ নামে পরিচিত। স্থানীয় ভাষায় যা ‘মাল’ বলে অভিহিত করা হয়। স্থানীয়ভাবে যারা আগর কাঠ শনা'ক্ত করেন তাদের ‘দৌড়া'ল’ বলা হয়।আতর উৎপাদনের উপকরণ সংগ্রহ ও জ্বালানি কাঠ ছাড়া অন্য কোনো কাজে এ গাছ ব্যবহার হয় না।

আগর-আতরের ব্যবহার:
আগরের সুগন্ধ প্রশান্তিদা'য়ক, অনেকেই শরীরের শক্তি বৃদ্ধিতে সহায়ক হিসেবে কাজে লাগে। নানাবিধ ওষুধ, পারফিউম, পারফিউম জাতীয় দ্রব্যাদি-সাবান, শ্যাম্পু এসব প্রস্তুতে আগর তেল ব্যবহার করা হয়। সাধারণত গৃহে, বিভিন্ন ধর্মীয় ও সামাজিক অনুষ্ঠানে সুগন্ধি ছড়ানোর জন্য আগর-আতর ব্যবহার করা হয়। আগর আতরের পাশাপাশি আগর কাঠের গুঁড়া বা পাউডার ধূপের মতো প্রজ্জ্ব'লনের মাধ্যমে সুগন্ধি হিসেবে ব্যবহার করা হয়। জাতি বর্ণ নির্বি'শেষে হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান এবং মুসলিম ধর্মা'লম্বী সবাই আগর আতর ও আগর কাঠের গুঁড়া ব্যবহার করে। আতর বাংলাদেশে তরল সোনা হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে।

আগর গাছের উৎপাদন কৌশল:
বাড়ির আঙিনায়, রাস্তার পাশে, পতিত জমি, টিলার ঢালে, টিলা বা পাহাড়ে এমনকি পরিত্য'ক্ত জায়গায় আগর গাছ লাগানো যায়। পাহাড় বা টিলা জমিতে আগর গাছ ভালো জন্মে। তবে সব জমিতেই কমবেশি জন্মে।

চারা তৈরি:
গাঢ় বাদামি বর্ণের ৩.৮১ সেমি.-৫.০০ সেমি (১.৫-২ ইঞ্চি) লম্বা ক্যাপসুল জাতীয় ফল থেকে বীজ সংগ্রহ করা হয়। প্রতি ফলে দুটো বীজ হয়। বীজের অঙ্কু'রোদগ'ম ক্ষম'তা খুব অল্প সময়ের জন্য থাকে। সাধারণত ৭-১০ দিন পর্যন্ত অঙ্কু'রোদগ'ম ক্ষম'তা স্থায়ী থাকে। বীজ থেকে চারা তৈরি করা হয়। বীজ বপনের উৎকৃ'ষ্ট সময় মার্চ-এপ্রিল। চারা উৎপাদনের ক্ষেত্রে বিশেষ প্রক্রি'য়া অবলম্বন করতে হয়। প্রথমে বালুর বেডে বীজগুলো বিছিয়ে দিয়ে ওপরে আবারও বালু দিয়ে ঢে'কে দেয়া হয়। এখানে বীজগুলো অঙ্কু'রিত হয়। প্রায় ২০-২৫ দিন পরে পলিব্যাগে চারা স্থানা'ন্তরিত হয়। চারা গজানোর জন্য অস্থায়ী শেডের ব্যবস্থার প্রয়োজন হয়। চারায় নিয়মিত পানি সেচের ব্যবস্থা রাখতে হয়।

চারা রোপণ:
বর্ষা মৌসুম আগর গাছের চারা রোপণের উৎকৃষ্ট সময়। বাংলাদেশে জুন থেকে সেপ্টেম্বর মাসে আগরের চারা রোপণ করলে গাছ টিকে বেশি। স্কুল, কলেজ, রাস্তা দুই পাশেও আগরের চারা রোপণ করা যায়। সামাজিক বনায়ন কর্মসূচিতেও আগর গাছ লাগানো যেতে পারে। রোপণের সময় প্রতিটি গর্তে জৈব সার-কম্পোস্ট সার, টিএসপি, এমওপি, জিপসাম সার গাছের বয়স অনুযায়ী প্রয়োগ করা যেতে পারে।

রোপণের সময় সারি থেকে সারির দূরত্ব ১.৫২ মি.-১.৮২ মি. (৫-৬ ফুট) এবং চারা থেকে চারার দূরত্ব ৯১.৪৪ সে.মি.-১.২২ মি. (৩-৪ ফুট) বজায় রাখা উত্তম। সাধারণত ১-২ বছর বয়সী আগরের চারা লাগানো হয়। একক বাগানের ক্ষেত্রে কম দূরত্ব এবং মিশ্র বাগানের ক্ষেত্রে একটু বেশি দূরত্ব রাখা উচিত। অন্যান্য গাছের মতো চারা রোপণের পূর্বে দৈর্ঘ্যে ৫০ সেমি প্রস্থে ৫০ সেমি এবং গভীরতায় ৫০ সেমি আকারের গর্ত তৈরি করে পচা গোবর ও সার প্রয়োগ করা ভালো।

আগর গাছের সাথে আন্তঃফসল:
সাধারণত প্রথম ৩-৫ বছর পর্যন্ত মি'শ্র ফসল যেমন শাকসবজি ও ডাল জাতীয় ফসল চাষ করা যায়। পরবর্তীতে কয়েক বছর ছায়া পছন্দকারী সর্পগন্ধা ঔষধি গাছের আবাদ করা যায়। আদা এবং হলুদও চাষ করা হয়। তাছাড়া সুপারি, কফি, রাবার, পামগাছসহ অধিকাংশ বনজ গাছ আগর গাছের সাথে মিশ্র ফসল হিসেবে চাষ করা যায়। বিভিন্ন দেশে এলাচও চাষ করে।

আন্তঃপরিচর্যা:
খরা মৌসুমে পানি সেচ দিতে হয়। প্রয়োজনমতো আগাছা দম'ন করতে হবে। তাছাড়া নিয়ম করে কিছু রাসায়নিক সার দিলে গাছের বৃদ্ধি দ্রু'ত হয়। এক্ষেত্রে নতুন আগর গাছের বাগানে কোনো রাসায়নিক সার প্রয়োগ করতে হয় না। আগর গাছের বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে সার ব্যবহার করা যায়। একবার বর্ষার আগে এবং একবার বর্ষার পরে অর্থাৎ বছরে দুইবার সার প্রয়োগ করা উত্তম।

আগরের রো'গ-বা'লাই:
আগরের তেমন কোনো রোগ হয় না তবে মাঝে মাঝে গোড়া প'চা রোগ এবং ডাই'ব্যা'ক রো'গে গাছের ডালপালা শুকি'য়ে যায়। প্রয়োজনীয় ছত্রাকনা'শক প্রয়ো'গ করে ভালো ফল পাওয়া যায়। আগর চাষের ক্ষেত্রে বিছা পোকা পাতা ঝাঁ'ঝরা করে ফেলে। সাই'পারমে'থ্রিন গ্রুপের কী'টনা'শক ব্যবহার করে বিছা পো'কার আ'ক্র'মণ দমা'নো যায়।

আগর সংগ্রহের সময়:
প্রাকৃতিকভাবে আগর গাছে আগর তৈরি হতে ২৫-৩০ বছর সময় লেগে যায়। তবে কৃত্রিমভাবে ৫-৬ বছর বয়সী আগর গাছে পেরেক মে'রে এসব গাছ ১৫-১৬ বছর হলেই আগর কাঠ সংগ্রহ করা যায়। আগর কাঠ সংগ্রহের জন্য গাছ ক'র্ত'নের উপযোগী হয়েছে কিনা তা বিবেচনা করা হয় মূলত গাছ কতটুকু রু'গ্ন হয়েছে তার ওপর ভিত্তি করে। গাছের বয়স, গাছের বৃদ্ধি ও শারী'রতা'ত্ত্বীয় পরিপ'ক্বতা বিবে'চনা করে আগর গাছ কর্ত'ন করা হয় না বরং গাছের বৃদ্ধি বন্ধ হয়ে যাওয়া, দৃ'শ্যমান ক্ষ'তযু'ক্ত কা'ণ্ড, কাঠের বিকৃ'তি, ক্ষুদ্র পাতা, মূল কাণ্ড ও শাখার ওপর ম'রা লক্ষ'ণ এসব দেখে আগর কাঠ কর্ত'ন করা ও সংগ্রহ করা হয়।

সারা বছরই আগর কাঠ সংগ্রহ করা গেলেও জানুয়ারি থেকে এপ্রিল মাসই আগর কাঠ সংগ্রহের উৎকৃষ্ট সময়। এ সময় গাছ সু'প্ত অবস্থায় থাকে বলে আগর কাঠে আতর বা তেলের পরিমাণ বেশি ও গুণগত মানের পাওয়া যায়। একটি প্রাপ্ত বয়স্ক গাছ থেকে ২.০-২.৫ কেজি পরিমাণ আগর কাঠ পাওয়া যায়।

আগর গাছে দুইভাবে আগর তৈরি হয় –

প্রাকৃতিক পদ্ধ'তি:
প্রাকৃতিক উপায়ে আগর গাছ হতে আগর উৎপন্ন হতে প্রায় ২৫-৩০ এমনকি ৫০ বছর সময়ের প্রয়োজন হয়। তবে আগর গাছের বয়স ৫-১০ বছর থেকেই গাছে আগর জমা হতে থাকে। এক্ষেত্রে গাছের বিভিন্ন স্থানে বিচ্ছিন্নভাবে কালো বর্ণ ধা'রণ করে। দেখতে ছো'প ছো'প আকারে অনেকটা সারি কাঠের মতো। তবে সারি কাঠ যেমন অনেকটা বা পুরোটা অংশজুড়ে কালো হয় এক্ষেত্রে ঠিক তেমনটি হয় না। আগর গাছে নির্দিষ্ট স্থানে কালো হওয়া শুরু হলে তা পূর্ণ হতে প্রায় ৪-৬ বছর লেগে যায়। এটি প্রাকৃতিক পদ্ধতি। গাছের এ কালো অংশকেই বলা হয় আগর বা আগর কাঠ।

কৃত্রি'ম পদ্ধ'তি:
এক ধরনের কাণ্ড' ছেদ'ক পোকা আগর গাছে ছি'দ্র তৈরি করে পরে সেখানে ছ'ত্রা'কের আক্র'মণে গাছ প্রতির'ক্ষামূ'লক ব্যবস্থা নিতে গিয়ে জৈবনিক প্র'ক্রি'য়ায় আগর গাছের ওই ক্ষ'ত স্থানের চারপাশে বাদামি-কালো রঙের আ'স্ত'রন তৈরি হয় যা আগর উৎপাদনের মূল উপকরণ। এ ধারণাকে কাজে লাগিয়ে মানুষ কৃত্রি'মভাবে পেরেক মে'রে ক্ষ'ত সৃ'ষ্টি করে, ফলে সেখানে আগর সঞ্চি'ত হয়।

এ পদ্ধতিতে খুব কম সময়ে আগর গাছ থেকে আতর তৈরির কাঁচামাল সংগ্রহ করা সম্ভব। এ পদ্ধতিতে ১০-১২ বছরের ১০-১২ ইঞ্চি পরিধির আগর গাছের গায়ে ৪-৫ ইঞ্চি পরপর সা'রিব'দ্ধভাবে গাছের নিচ থেকে শুরু করে ওপর পর্যন্ত প্যা'রেক (তারকা'টা) গেঁ'থে দেওয়া হয়। সরেজমিন পর্যবে'ক্ষণ করে দেখা গেছে, ২.৫৪ সে.মি.-৫.০০ সে.মি. (১-২ ইঞ্চি) পরপর সারিব'দ্ধভাবে ৩.৮১ সে.মি.-৫.০০ সে.মি. ১.৫ থেকে ২.০ ইঞ্চি সাইজের তারকাটা ৪-৫ বছর বয়সী গাছে লাগানো হয়েছে।

তারকাটা লাগানোর সময় একটা কৌ'শল হিসেবে অর্ধেক অংশ পরিমাণ তারকাটা গাছের কা'ণ্ডে ডু'কা'নো হয়, একটু আ'ড়াআড়ি'ভাবে লাগানো পেরেকের বাহিরের অংশটুকু গাছের বৃদ্ধির সাথে সাথে কা'ণ্ডের ভেতর ডু'কে যায় গাছের তারকাঁটা গাঁথা অংশে কৃ'ত্রিমভাবে আ'ঘা'তের ফলে ছ'ত্রা'কের আ'ক্র'মণ সহজেই ঘটে ফলে তারকাঁটার চারপাশের কাঠে ৫-৬ বছরের মধ্যেই বাদামি-কালো রঙের আ'স্ত'রণ তৈরি হয়। পরে সে গাছগুলো কেটে আগর-আতর উৎপাদনের কাঁচামাল বে'র করা হয়। সাধারণত গাছের পুরু'ত্ব ও আকারের ওপর তারকাঁটা পো'তা নির্ভর করে। এক্ষেত্রে গাছের বয়সটা মুখ্য নয়।

আতর প্রস্তুত করার কলাকৌ'শল:
আগর বাগান থেকে পূর্ণ বয়স্ক আগর গাছ কে'টে এনে প্রথমে তা টু'করো টু'করো (স্থানীয় ভাষায় লগ) করে কে'টে আলাদা করা হয়। এ টুক'রোগুলোকে দুইভাগে আলাদা করা হয়। এক ভাগে ঘন কালো, হালকা কালো, তামাটে, অল্প তামাটে বর্ণের কাঠের টুক'রা এবং অন্য ভাগে ধূসর, প্রায় সাদা বর্ণের কাঠের টুক'রা থাকে।

হালকা কালো, তামাটে ও অল্প তামাটে রঙের আগর কাঠের লগগুলোকে লম্বালম্বিভাবে চে'রা হয়। লম্বালম্বি চেরাগুলোকে ফালি বলা হয়। ফালিগুলো থেকে সাবধানতার সাথে তারকাটাগুলোকে সরানো হয়। ফালিগুলো অত্যন্ত যত্ন ও সুনি'পুণভাবে করা হয় যেন কালো অংশ বা আগরগুলো আ'স্ত থাকে। চেরা ফালিগুলো স্থানীয় ভাষায় ধুম বলে। কারখানাগুলোতে ধুম তৈরির কাজগুলো মূলত মহিলারা করেন।

ধুম করার পর কাঠের ফালিগুলোকে কু'চি কু'চি করে কা'টা হয়। চেরা ফালিগুলো (ধুম) কু'চি কু'চি করতে দা' ব্যবহারের পাশাপাশি অনেক কারখানায় মেশিন ব্যবহার করা হয়। এরপর কু'চি কু'চি করে কা'টা টুক'রোগুলো একটি পাত্রে বা পানির ট্যাঙ্ক, ড্রাম, বড় হাঁড়িতে (স্থানীয় ভাষায় ডেগ বলে) ১০-১৫ দিন পর্যন্ত ভিজিয়ে রাখা হয়। ভিজিয়ে রাখা কাটা কাঠগুলো তুলে চালনির সাহায্য পানি ঝ'ড়িয়ে ঢেকি দিয়ে গুঁ'ড়া করা হয়।

স্থানীয় ভাষায় কাঠের গুঁড়া অংশগুলোকে ছু'রন বলা হয়। ছুরনগুলোকে আবারও কমপক্ষে ৮-১০ দিন ভিজিয়ে রাখতে হয়। উল্লেখ্য যে, ডেগে ভিজিয়ে রাখার ব্যাপারে অনেকে ২ বার আবার অনেকে ১ বারও করে থাকে। ছুরনগুলো খুব ভালোভাবে প'চে গেলে ডে'গ থেকে তুলে নিয়ে একটি পানি ভর্তি স্টিলের তৈরি বিশেষ পাত্রের মধ্যে রেখে পরবর্তীতে নিচ থেকে আ'গু'নে তা'প দিতে হয়।

পাত্রের চারিদিক খুব ভালোভাবে বন্ধ করা থাকে, অনেকটা এয়ার টা'ইটের মতো। এভাবে অন'বরত ১০-১২ দিন তাপ প্রয়ো'গ করতে হয়। পাত্রের ওপরের দিকে বিশেষ প্রক্রি'য়ায় একটা নল সংযু'ক্ত করা হয় এবং নলটির অপরপ্রা'ন্ত আরেকটি পাত্রের সাথে সংযু'ক্ত করা থাকে। নলটি অন্য একটি ঠাণ্ডা পানি ভর্তি স্টিলের তৈরি দিয়ে পরিচালিত করে অন্য পাত্রের সাথে সংযু'ক্ত করা হয়।

এখানে স্টিলের তৈরি পাত্রটিতে ঠাণ্ডা পানি ভর্তি থাকে, ফলে নলের মধ্য দিয়ে ভেসে আসা বা'ষ্পগুলো ঠাণ্ডা পানির সং'স্প'র্শে এসে সহজেই ফো'টায় ফো'টায় পানিতে পরি'ণত হয়, ফো'টায় ফো'টায় পানিগুলো নলের অপর প্রা'ন্তে রাখা পাত্রে জমা হয়। আ'গু'নের তা'পে ছুরন কাঠ সি'দ্ধ হয়ে বাষ্পা'কারে ওপরের নলে প্রবেশ করে এবং বা'ষ্পগুলো ঘ'নীভূ'ত হয়ে অপর প্রা'ন্তের পাত্রের মধ্যে ফোটায় ফোটায় পড়তে থাকে।

ঘ'নীভূ'ত বাষ্প' পানি হয়ে নির্দিষ্ট পাত্রে জমতে থাকে এবং তার ওপর তেলের আ'স্ত'রণ পড়ে। তেলের এ আস্ত'রণই আগর আতর তেল। পরবর্তীতে পানির ওপর থেকে তেলের অংশটিকে সংগ্র'হ করা হয়। এটি মূলত বা'ষ্পীভবন-শীতলীক'রণ প্রক্রি'য়ায় বিশেষ পাতন প্রক্রি'য়া। এক সঙ্গে একটি ডেগে ৭৪.৬৫ কেজি-১১২.০০ কেজি (২-৩ মণ) পরিমাণ ছুরন (আগর চিপস/আগর কাঠের টুকরো) ভর্তি করা যায়।

এক ডেগ ছুরন জ্বা'ল দিয়ে ৮-৯ তোলা আতর পাওয়া যায়। একতোলা আতর প্রায় ১২ গ্রাম পরিমাণ। প্রাপ্ত তথ্য মতে, আতর বের করার পর উ'চ্ছি'ষ্টগুলো আগর বাতির ফ্যাক্টরিতে বিক্রি করা হয়। তাছাড়া উ'চ্ছি'ষ্ট অংশগুলোও মধ্যপ্রাচ্যে রপ্তানি করা হয়।

আগরের বাজার ব্যবস্থাপনা:
বিশ্বে আগর আতর পণ্যের প্রায় ১৬০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের রপ্তানি বাজার রয়েছে। মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো আগর উড চিপস ও আতরের খুব চাহিদা রয়েছে। বাংলাদেশে আগর কাঠের বিভিন্ন প্রকার মান রয়েছে যথা- ডবল সুপার, আগর প্রপার, কলাগাছি আগর, ডোম আগর। আগর আতর শিল্প থেকে দেশি ও বিদেশি অনেক আতর তৈরি হয়।

এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো জান্নাতুল নাঈম, জান্নাতুল ফেরদাউস, শাইখা, হাজরে আসওয়াদ, সুলতান, উদ, কিং হোয়াইট, আল ফারেজ, কুল ওয়াটার এসব নামের আতর বিশ্বব্যাপী সমাদৃ'ত। আগর কাঠের বাজারদর প্রতি কেজি পাঁচ ডলার থেকে দশ হাজার ডলার। গুণগত মানের ওপর নির্ভর করে এক তোলা আতর ৫-১৫ হাজার পর্যন্ত বিক্রি হয়।

ভিন্ন ভিন্ন দেশের গ্রাহক বা ব্যবসায়ীরা ভিন্ন ভিন্ন গুণাবলি বিবেচনায় রেখে আগর কাঠের মান-দাম নির্ধারণ করে থাকেন। মধ্যপ্রাচ্য ও ভারতে আগর কাঠের তেল থেকে প্রাপ্ত গ'ন্ধ বা সুরভী মুখ্য বিষয় হিসেবে বিবেচনা করা হয়। বর্তমানে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে সিঙ্গাপুর আগর ব্যবসার মূলকেন্দ্র। প্রধান প্রধান উৎপাদনকারী দেশগুলোর মধ্যে ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া অন্যতম।

লাভজনক ব্যবসা আগর শিল্প:
আগর-আতর উৎপাদন অত্যন্ত লাভজনক ব্যবসা। এ ব্যবসায় অল্প পুঁজি বিনিয়োগ করে বেশি মুনাফা আয় করা সম্ভব। এক কেজি কালো কাঠের মূল্য প্রায় ২ লাখ টাকা। একটি আগর কাঠসমৃ'দ্ধ প্রা'প্ত বয়স্ক গাছের মূল্য ৫-১০ লাখ এমনকি ২০-২৫ লাখ টাকা পর্যন্ত হতে পারে। গবেষণায় দেখা যায়, আগর প্লা'ন্টেশ'নে বিনিয়োগ করে উচ্চ মুনাফা অর্জন করা সম্ভব। অন্য জরিপে জানা যায়, সঞ্চয়পত্রে ১ ডলার বিনিয়োগ করলে ১২ বছর পর ৪.২১ ডলার পাওয়া যায়, অপরদিকে আগর গাছে ১ ডলার বিনিয়োগ করলে ১১৭ থেকে ৭৩৬ ডলার আশা করা যায়। তাছাড়া আগর শিল্প একটি পরিবেশবা'ন্ধব শিল্প।



খেলাধুলার সকল খবর »

ইসলাম


আল্লাহ যাদের রক্ষা করেন, তাদেরকে কেউ ক্ষতি করতে পারে না

আল্লাহ-যাদের-রক্ষা-করেন-তাদেরকে-কেউ-ক্ষতি-করতে-পারে-না

জীবনের সার্বিক সফলতার সর্বোত্তম দোয়া

জীবনের-সার্বিক-সফলতার-সর্বোত্তম-দোয়া

হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরির প্রবেশপথে কোরআনের আয়াত!

হার্ভার্ড-বিশ্ববিদ্যালয়ের-লাইব্রেরির-প্রবেশপথে-কোরআনের-আয়াত- ইসলাম সকল খবর »

এক্সক্লুসিভ নিউজ


মধ্যপ্রাচ্যে ভোরের আকাশে শয়তানের লাল শিং, সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাই'রাল!

মধ্যপ্রাচ্যে-ভোরের-আকাশে-শয়তানের-লাল-শিং-সোশ্যাল-মিডিয়ায়-ভাই-রাল-

বিয়ের আসরে অসহায় পথশিশুদের নিজ হাতে খাওয়ালেন কনে!

বিয়ের-আসরে-অসহায়-পথশিশুদের-নিজ-হাতে-খাওয়ালেন-কনে-

মা হওয়া অসম্ভব, অতঃপর যা করলেন মুকেশ আম্বানীর স্ত্রী নীতা আম্বানী

মা-হওয়া-অসম্ভব-অতঃপর-যা-করলেন-মুকেশ-আম্বানীর-স্ত্রী-নীতা-আম্বানী এক্সক্লুসিভ সকল খবর »

সর্বাধিক পঠিত


পাকিস্তান সফরে মুশফিকের না যাওয়ার কারণ জানালেন তার বাবা

বাংলাদেশকে নিয়ে কেউ বাজে কথা বলবেন না : শোয়েব আখতার

রাসেলের ২ চার ও ৭ ছয়ে দুর্দান্ত হাফসেঞ্চুরি পূর্ণ করে ফাইনালে রাজশাহী

১ লক্ষ ১৩ হাজার ভোট পেয়ে বাবরকে হারিয়ে বর্ষসেরা ব্যাটসম্যান সাকিব

বিচিত্র জগৎ


নিজের ছোট্ট সন্তানকে ওয়াশিংমেশিনে ঢোকালেন মা, অতঃপর কান্নার রোল!

নিজের-ছোট্ট-সন্তানকে-ওয়াশিংমেশিনে-ঢোকালেন-মা-অতঃপর-কান্নার-রোল-

বিয়ের দু’সপ্তাহ পর ইমাম জানলেন স্ত্রী পুরুষ হিজরা!

বিয়ের-দু’সপ্তাহ-পর-ইমাম-জানলেন-স্ত্রী-পুরুষ-হিজরা-

'স্বামী দাঁত মাজে না' তাই ডিভোর্স চাইলেন স্ত্রী

-স্বামী-দাঁত-মাজে-না--তাই-ডিভোর্স-চাইলেন-স্ত্রী বিচিত্র জগতের সকল খবর »

জেলার খবর


ঢাকা ফরিদপুর
গাজীপুর গোপালগঞ্জ
জামালপুর কিশোরগঞ্জ
মাদারীপুর মানিকগঞ্জ
মুন্সিগঞ্জ ময়মনসিংহ
নারায়ণগঞ্জ নরসিংদী
নেত্রকোনা রাজবাড়ী
শরীয়তপুর শেরপুর
টাঙ্গাইল ব্রাহ্মণবাড়িয়া
কুমিল্লা চাঁদপুর
লক্ষ্মীপুর নোয়াখালী
ফেনী চট্টগ্রাম
খাগড়াছড়ি রাঙ্গামাটি
বান্দরবান কক্সবাজার
বরগুনা বরিশাল
ভোলা ঝালকাঠি
পটুয়াখালী পিরোজপুর
বাগেরহাট চুয়াডাঙ্গা
যশোর ঝিনাইদহ
খুলনা মেহেরপুর
নড়াইল নওগাঁ
নাটোর গাইবান্ধা
রংপুর সিলেট
মৌলভীবাজার হবিগঞ্জ
নীলফামারী দিনাজপুর
কুড়িগ্রাম লালমনিরহাট
পঞ্চগড় ঠাকুরগাঁ
সুনামগঞ্জ কুষ্টিয়া
মাগুরা সাতক্ষীরা
বগুড়া জয়পুরহাট
চাঁপাই নবাবগঞ্জ পাবনা
রাজশাহী সিরাজগঞ্জ