পামফল কেনার কেউ নেই, খাগড়াছড়ির পামচাষিদের মাথায় হাত

১২:৫৯:১৯ বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সর্বশেষ সংবাদ :

     • স্কোয়াডে বেশ কয়েকটি পরিবর্তন, আজ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টাইগারদের সম্ভাব্য একাদশ     • ইরানের বিরুদ্ধে সৌদির পক্ষে আমরা যুদ্ধ করতে চাই না: ট্রাম্প     • জাকির নায়েক ভারতের জন্য ‘ক্ষতিকারক’: মাহাথির মোহাম্মদ     • ২০ টাকা পেয়েই ছোট বোনের জন্য ভাত কিনতে দৌড়াল আকাশী     • আজ ওপেনিংয়ে ব্যাটিং ...     • এক অস্থির সময়ের মধ্য দিয়ে চলছে বাংলাদেশ দল!     • হঠাৎ ভারত মহাসাগরে ৭ চীনা যুদ্ধজাহাজ     • মোটা মানুষের মন বেশি সুন্দর-গবেষণার ফলাফল     • সৌদি থেকে শূন্য হাতে, এক কাপড়েই ফিরলেন আরও ১৬০ কর্মী     • আজ সন্ধ্যা ৬.৩০ মিনিটে মাঠে নামবে বাংলাদেশ, দেখাবে গাজী টিভি, স্টার স্পোর্টস সিলেক্ট এইচডি ২

বুধবার, ১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮, ১১:১৫:১৩

পামফল কেনার কেউ নেই, খাগড়াছড়ির পামচাষিদের মাথায় হাত

পামফল কেনার কেউ নেই, খাগড়াছড়ির পামচাষিদের মাথায় হাত

আবু দাউদ, খাগড়াছড়ি: প্রলোভনে পড়ে পামচাষ করে সব হারিয়েছেন খাগড়াছড়ির শত শত কৃষক। পামফল সংগ্রহ করে তেল উৎপাদন কিংবা বিক্রির কোনো ব্যবস্থা না থাকায় গাছেই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে পামফল। ক্ষতির শিকার হচ্ছেন

চাষিরা। উৎপাদিত পামফল সংরক্ষণ ও বিপণন করতে না পারায় বাধ্য হয়ে অনেকে পামগাছ কেটে ফেলছেন। পামফল থেকে তেল নিষ্কাশনের জন্য এক বছর আগে খাগড়াছড়ি বিসিক শিল্প নগরীতে একটি প্রক্রিয়াজাতকরণ কারখানা স্থাপিত হলেও এখনো এক ফোঁটা তেলও উৎপাদন সম্ভব হয়নি। সরকারি দপ্তরগুলোও এ অসহায় চাষিদের পাশে দাঁড়াচ্ছে না বলে অভিযোগ পামচাষিদের। হতাশ পামচাষিরা সরকারের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

খাগড়াছড়ি জেলার বিভিন্ন উপজেলায় পাহাড়ের ঢালে ঢালে শোভা পাচ্ছে কয়েক শ একর পামগাছ। প্রায় সব গাছেই ফল এসেছে। ওয়ান ইলাভেন সরকারের আমলে মূলত খাগড়াছড়িতে প্রথম পাম চাষাবাদ শুরু হয়েছিল। তৎকালীন সরকারের আমলে ২০০৭-২০০৮ সালে ব্যাপক হারে পামচাষ হয়। বিশেষ গোষ্ঠীর প্ররোচনায় শত শত কৃষক নিজেদের সব অর্থ বিলিয়ে দিয়ে পাম চাষে ঝাঁপিয়ে পড়েন। পাম চাষে ভাগ্যের পরিবর্তনের আশায় অনেকেই উদ্বুদ্ধ হন।

৪/৫ বছরের ব্যবধানে প্রতিটি গাছে পামফল আসতে শুরু হয়। কৃষকদের মুখে হাসিও ফোটে।

কিন্তু পামচাষ সম্পর্কে ধারণাই ছিল না তাঁদের। জানা ছিল না ফল সংগ্রহ ও তেল তৈরি পদ্ধতি। উৎপাদিত পামফল বাজারজাতের বিষয়ে কৃষকরা ভাবতেই পারেননি। ফলে গাছে পামফল পাকার পর ক্রেতা খুঁজে না পাওয়ায় হতাশ হতে শুরু করেন তারা। যারা পামচাষে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন, তারা গা ঢাকা দেন। এই চাষে উৎসাহিত করা বিশেষ গোষ্ঠীর লোকজনকে আর দেখা যায় না। বিশেষ করে পামচারা বিক্রয়কারীরাও পালিয়ে যায়। ফলে এই কৃষকদের মুখে হাসি ছিল, তারাই নিরাশ হয়ে পামগাছও কেটে ফেলছেন। এখনো বহু পামবাগানে ফলগুলো গাছেই পেকে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

পামচাষি মো. শাহাদাত হোসেন জানান, তার পামবাগানে এ পর্যন্ত সোয়া দুই কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছেন।

এ পর্যন্ত ১০০ টন পামফল নষ্ট হয়েছে বলে জানান। লাভ না থাকায় এখন নিঃস্ব হয়ে দিশাহারা তিনি। সরকারি সহযোগিতা ছাড়া এখন আর কোনো উপায় নেই বলেও উল্লেখ করেন।

আরেক পামচাষি কে এম ইসমাইল হোসেন অভিযোগ করেছেন, কৃষকদেরকে মিথ্যা প্রলোভন দেখিয়ে পামচাষে উদ্বুদ্ধ করা হয়। এখন পামফল কিনতে কাউকেই পাওয়া যাচ্ছে না।

প্রায় এক বছর আগে খাগড়াছড়ি বিসিক শিল্প নগরীতে পামচাষিদের উদ্যোগে কর্ণফুলী গোল্ডেন পাম লিমিটেড নামে সমিতির মাধ্যমে একটি মেশিন বসালেও এক ফোঁটা তেলও উৎপাদন সম্ভব হয়নি। ফলে ওই কারখানার শ্রমিকরাও বেতন-ভাতা নিয়ে বিপাকে পড়েছেন।

খাগড়াছড়ি কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, খাগড়াছড়ি জেলায় ১৩৫ হেক্টর পামবাগান রয়েছে।

খাগড়াছড়ি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো. আবুল কাশেম জানালেন, প্রতারণার শিকার হয়েই কৃষকরা খাগড়াছড়িতে পামচাষ করেছিলেন। এখন সেগুলো লাভের পরিবর্তে গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে।-কালের কণ্ঠ
এমটিনিউজ২৪.কম/এইচএস/কেএস



খেলাধুলার সকল খবর »

ইসলাম


ইসলাম সকল খবর »

এক্সক্লুসিভ নিউজ


পর্যাপ্ত টাকা যোগাড় করতে না পেরে নিজের লিভার দিয়ে মেয়েকে বাঁচালেন মা

পর্যাপ্ত-টাকা-যোগাড়-করতে-না-পেরে-নিজের-লিভার-দিয়ে-মেয়েকে-বাঁচালেন-মা

৪০-৪৫ বছর ধরে কাচ চিবিয়ে খেয়ে দিব্যি বেঁচে আছেন এই ব্যক্তি

৪০-৪৫-বছর-ধরে-কাচ-চিবিয়ে-খেয়ে-দিব্যি-বেঁচে-আছেন-এই-ব্যক্তি

প্রেমিকাকে কার্টুন ছবি পাঠানোয় ছ'মাসের জেল, ৮৯ হাজার টাকা জরিমানা!

প্রেমিকাকে-কার্টুন-ছবি-পাঠানোয়-ছ-মাসের-জেল-৮৯-হাজার-টাকা-জরিমানা- এক্সক্লুসিভ সকল খবর »

সর্বাধিক পঠিত


মাঠের মধ্য সাকিব ও রশিদের কথা-কাটাকাটির কারণ জানালেন মুজিব উর রহমান

কি রোগ সেটা ডাক্তার শোনার আগেই আয়া এসে রোগীর কাপড় খুলে নেয়

চার সন্তানের বাবা, তবুও বিয়ের সময় হয়নি রোনালদোর!

নতুন ভিডিও ফাঁস, মিন্নি একাই রিফাতকে হাসপাতালে নিয়ে যান

পাঠকই লেখক


শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি যে, এই গ্রামের সবাই দৃষ্টিহীন! কারণ...

শুনতে-অবাক-লাগলেও-এটাই-সত্যি-যে-এই-গ্রামের-সবাই-দৃষ্টিহীন--কারণ

ছাগল চুরির ৪১ বছর পর ধরা পড়লো চোর!

ছাগল-চুরির-৪১-বছর-পর-ধরা-পড়লো-চোর-

মহাকাশে সিমেন্ট গুলছে নাসার বিজ্ঞানিরা, চাঁদে বানানো হবে বাড়ি

মহাকাশে-সিমেন্ট-গুলছে-নাসার-বিজ্ঞানিরা-চাঁদে-বানানো-হবে-বাড়ি পাঠকই সকল খবর »

জেলার খবর


ঢাকা ফরিদপুর
গাজীপুর গোপালগঞ্জ
জামালপুর কিশোরগঞ্জ
মাদারীপুর মানিকগঞ্জ
মুন্সিগঞ্জ ময়মনসিংহ
নারায়ণগঞ্জ নরসিংদী
নেত্রকোনা রাজবাড়ী
শরীয়তপুর শেরপুর
টাঙ্গাইল ব্রাহ্মণবাড়িয়া
কুমিল্লা চাঁদপুর
লক্ষ্মীপুর নোয়াখালী
ফেনী চট্টগ্রাম
খাগড়াছড়ি রাঙ্গামাটি
বান্দরবান কক্সবাজার
বরগুনা বরিশাল
ভোলা ঝালকাঠি
পটুয়াখালী পিরোজপুর
বাগেরহাট চুয়াডাঙ্গা
যশোর ঝিনাইদহ
খুলনা মেহেরপুর
নড়াইল নওগাঁ
নাটোর গাইবান্ধা
রংপুর সিলেট
মৌলভীবাজার হবিগঞ্জ
নীলফামারী দিনাজপুর
কুড়িগ্রাম লালমনিরহাট
পঞ্চগড় ঠাকুরগাঁ
সুনামগঞ্জ কুষ্টিয়া
মাগুরা সাতক্ষীরা
বগুড়া জয়পুরহাট
চাঁপাই নবাবগঞ্জ পাবনা
রাজশাহী সিরাজগঞ্জ