'যেসব বই পড়ে ডিগ্রি দেয়া হচ্ছে তা কর্মজীবনে কাজে আসছে না'

০৯:১৬:৪৭ বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২০

সর্বশেষ সংবাদ :

     • প্রথম ফুটবলার হিসাবে বিরল পুরস্কারে ভূষিত লিওনেল মেসি     • করোনাভাইরাসের রেশ না কাটতেই, এবার চীনের আকাশে একসঙ্গে পাঁচ সূর্য!     • জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ম্যাচের আগে টাইগারদের গোপন প্র্যাকটিস!     • দৈনন্দিন জীবনে ‘ইনশা আল্লাহ’ বলার গুরুত্ব ও তাৎপর্য এবং না বলার পরিণাম     • 'চেহারা লুকিয়ে স্বাধীনতার বড়াই?' ফের খাতিজাকে আ'ক্রমণ তসলিমার     • হিন্দু ঘরে জন্ম, মুসলিম ঘরে পালিত; অতঃপর যে রীতিনীতিতে বিয়ে     • দেশের মানুষ যেন একটু সুখের মুখ দেখে, সেই চেষ্টা করছি : প্রধানমন্ত্রী     • অতি উৎসাহী হয়ে দলীয় এমপিদের বাড়াবাড়ি না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর     • তাস খেলার টেবিলে পুরুষদের সঙ্গে তাস খেলছেন সৌদি নারী     • তাপস পালকে নিয়ে চঞ্চল চৌধুরীর আবেগঘন স্মৃতিচারণ

শুক্রবার, ১৭ জানুয়ারী, ২০২০, ১২:০০:৫৯

'যেসব বই পড়ে ডিগ্রি দেয়া হচ্ছে তা কর্মজীবনে কাজে আসছে না'

'যেসব বই পড়ে ডিগ্রি দেয়া হচ্ছে তা কর্মজীবনে কাজে আসছে না'

নিউজ ডেস্ক: শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, বর্তমান শিক্ষাব্যবস্থায় অনেক অসঙ্গতি রয়েছে। যেসব পাঠ্যপুস্তক পড়ে অনার্স-মাস্টার্স ডিগ্রি দেয়া হচ্ছে তা আসলে কর্ম ও ব্যক্তিজীবনে কাজে আসছে না। আমরা তাদের শুধু শিক্ষিত বেকার করে গড়ে তুলছি। তিনি বলেন, আমাদের শিক্ষার্থীদের নতুনভাবে তৈরি করা হবে।

বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ডাক ও টেলিযোগাযোগ এবং তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলা-২০২০ অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী এসব কথা বলেন।

ডা. দীপু মনি বলেন, আমাদের শিক্ষার্থীদের নতুনভাবে তৈরি করা হবে। এর আলোকে শিক্ষাব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তনের কাজ শুরু করা হয়েছে। পরীক্ষা ও বিষয়ের বাড়তি চাপ কমানো হচ্ছে। পাঠদান পদ্ধতিতেও পরিবর্তন আনা হবে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বর্তমান শিক্ষাব্যবস্থায় অনেক অসঙ্গতি রয়েছে। সেসব চিহ্নিত করে যুগোপযোগী করা হচ্ছে। আমাদের ইন্ডাস্ট্রি ও একাডেমিক বিষয়ে অনেক অমিল রয়েছে। যেসব পাঠ্যপুস্তক পড়ে অনার্স-মাস্টার্স ডিগ্রি দেয়া হচ্ছে তা আসলে কর্ম ও ব্যক্তিজীবনে কাজে আসছে না। আমরা তাদের শুধু শিক্ষিত বেকার করে গড়ে তুলছি। এ কারণে ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে সমন্বয় রেখে আমাদের একাডেমিক তৈরি করা হচ্ছে।

একসময় ডিজিটাল বাংলাদেশ বলা হলে তা নিয়ে অনেকে হাসিঠাট্টা করা হতো বলে জানান দা. দীপু মনি। তিনি বলেন, এখন তার আর কোনো সুযোগ নেই। ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন দৃশ্যমান। প্রতিটি খাতই আজ ডিজিটালাইজড হয়ে উঠছে। বিশ্বের রোল মডেল হিসেবে অনেকের কাছে পরিচিতি লাভ করতে সক্ষম হয়েছে। আমাদের শিক্ষাব্যবস্থাকেও ডিজিটালাইজড করা হচ্ছে।

দীপু মনি বলেন, আমাদের দেশের জনসংখ্যার বড় একটি অংশ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কাজ করছে। তারা দেশের রেমিট্যান্স বাড়াচ্ছেন। তবে তাদের অনেকে অদক্ষ ও অনভিজ্ঞ বলে সঠিক মূল্যায়ন হচ্ছে না। তাদের অভিজ্ঞ করে বিদেশে পাঠাতে পারলে দেশে আরও বেশি রেমিট্যান্স বাড়ত এবং তাদের জীবনমান বেড়ে যেত। তিনি বলেন, এসব বিষয় নিয়ে আমাদের কাজ করতে হবে।

‘কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আমাদের শিক্ষার্থীদের গতানুগতিক বিদ্যা শেখালেও তাদের মূল্যবোধ, মানবতাবোধ, সততা শেখাতে পারছে না। এ কারণে অনেকে শিক্ষিত হলেও তা সঠিক কাজে আসছে না বলে এখনও দুর্নীতি রোধ করা সম্ভব হয়নি। তাই আমাদের শিক্ষার্থীদের মূল্যবোধ ও মানবতাবোধ তৈরির লক্ষ্যে তার আলোকে পাঠ্যক্রম তৈরি করা হচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষার্থীদের ওপর পরীক্ষার বাড়তি চাপ ও বাড়তি পাঠ্যবইয়ের চাপ কমানোর কাজ শুরু হয়েছে’ যোগ করেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিশেষ অতিথি সংসদ সদস্য এ কে এম রহমতুল্লাহ, সঞ্চালক অধ্যাপক ড. মুনাজ আহমেদ খান প্রমুখ।
শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, বর্তমান শিক্ষাব্যবস্থায় অনেক অসঙ্গতি রয়েছে। যেসব পাঠ্যপুস্তক পড়ে অনার্স-মাস্টার্স ডিগ্রি দেয়া হচ্ছে তা আসলে কর্ম ও ব্যক্তিজীবনে কাজে আসছে না। আমরা তাদের শুধু শিক্ষিত বেকার করে গড়ে তুলছি। তিনি বলেন, আমাদের শিক্ষার্থীদের নতুনভাবে তৈরি করা হবে।

বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ডাক ও টেলিযোগাযোগ এবং তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলা-২০২০ অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী এসব কথা বলেন।

ডা. দীপু মনি বলেন, আমাদের শিক্ষার্থীদের নতুনভাবে তৈরি করা হবে। এর আলোকে শিক্ষাব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তনের কাজ শুরু করা হয়েছে। পরীক্ষা ও বিষয়ের বাড়তি চাপ কমানো হচ্ছে। পাঠদান পদ্ধতিতেও পরিবর্তন আনা হবে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বর্তমান শিক্ষাব্যবস্থায় অনেক অসঙ্গতি রয়েছে। সেসব চিহ্নিত করে যুগোপযোগী করা হচ্ছে। আমাদের ইন্ডাস্ট্রি ও একাডেমিক বিষয়ে অনেক অমিল রয়েছে। যেসব পাঠ্যপুস্তক পড়ে অনার্স-মাস্টার্স ডিগ্রি দেয়া হচ্ছে তা আসলে কর্ম ও ব্যক্তিজীবনে কাজে আসছে না। আমরা তাদের শুধু শিক্ষিত বেকার করে গড়ে তুলছি। এ কারণে ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে সমন্বয় রেখে আমাদের একাডেমিক তৈরি করা হচ্ছে।

একসময় ডিজিটাল বাংলাদেশ বলা হলে তা নিয়ে অনেকে হাসিঠাট্টা করা হতো বলে জানান দা. দীপু মনি। তিনি বলেন, এখন তার আর কোনো সুযোগ নেই। ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন দৃশ্যমান। প্রতিটি খাতই আজ ডিজিটালাইজড হয়ে উঠছে। বিশ্বের রোল মডেল হিসেবে অনেকের কাছে পরিচিতি লাভ করতে সক্ষম হয়েছে। আমাদের শিক্ষাব্যবস্থাকেও ডিজিটালাইজড করা হচ্ছে।

দীপু মনি বলেন, আমাদের দেশের জনসংখ্যার বড় একটি অংশ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কাজ করছে। তারা দেশের রেমিট্যান্স বাড়াচ্ছেন। তবে তাদের অনেকে অদক্ষ ও অনভিজ্ঞ বলে সঠিক মূল্যায়ন হচ্ছে না। তাদের অভিজ্ঞ করে বিদেশে পাঠাতে পারলে দেশে আরও বেশি রেমিট্যান্স বাড়ত এবং তাদের জীবনমান বেড়ে যেত। তিনি বলেন, এসব বিষয় নিয়ে আমাদের কাজ করতে হবে।

‘কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আমাদের শিক্ষার্থীদের গতানুগতিক বিদ্যা শেখালেও তাদের মূল্যবোধ, মানবতাবোধ, সততা শেখাতে পারছে না। এ কারণে অনেকে শিক্ষিত হলেও তা সঠিক কাজে আসছে না বলে এখনও দুর্নীতি রোধ করা সম্ভব হয়নি। তাই আমাদের শিক্ষার্থীদের মূল্যবোধ ও মানবতাবোধ তৈরির লক্ষ্যে তার আলোকে পাঠ্যক্রম তৈরি করা হচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষার্থীদের ওপর পরীক্ষার বাড়তি চাপ ও বাড়তি পাঠ্যবইয়ের চাপ কমানোর কাজ শুরু হয়েছে’ যোগ করেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিশেষ অতিথি সংসদ সদস্য এ কে এম রহমতুল্লাহ, সঞ্চালক অধ্যাপক ড. মুনাজ আহমেদ খান প্রমুখ।



খেলাধুলার সকল খবর »

ইসলাম


দৈনন্দিন জীবনে ‘ইনশা আল্লাহ’ বলার গুরুত্ব ও তাৎপর্য এবং না বলার পরিণাম

দৈনন্দিন-জীবনে-‘ইনশা-আল্লাহ’-বলার-গুরুত্ব-ও-তাৎপর্য-এবং-না-বলার-পরিণাম

জীবনের শেষ সময়ে এসে পবিত্র ধর্ম ইসলাম গ্রহণ করলেন ৯২ বছরের বৃদ্ধা

জীবনের-শেষ-সময়ে-এসে-পবিত্র-ধর্ম-ইসলাম-গ্রহণ-করলেন-৯২-বছরের-বৃদ্ধা

মানুষের চোখে ফেরেশতাদের দেখা কি সম্ভব?

মানুষের-চোখে-ফেরেশতাদের-দেখা-কি-সম্ভব- ইসলাম সকল খবর »

এক্সক্লুসিভ নিউজ


যেকোনও ধরনের লিভারের সমস্যা মোকাবিলায় উপকারী তেঁতুল!

যেকোনও-ধরনের-লিভারের-সমস্যা-মোকাবিলায়-উপকারী-তেঁতুল-

পৃথিবীতে একমাত্র রাণী এলিজাবেথের পাসপোর্ট লাগেনা!

পৃথিবীতে-একমাত্র-রাণী-এলিজাবেথের-পাসপোর্ট-লাগেনা-

সম্রাট আওরঙ্গজেব, দুবলার চর ও সেন্ট মার্টিন দ্বীপের গুরুত্ব

সম্রাট-আওরঙ্গজেব-দুবলার-চর-ও-সেন্ট-মার্টিন-দ্বীপের-গুরুত্ব এক্সক্লুসিভ সকল খবর »

সর্বাধিক পঠিত


অবশেষে করো'না প্রতিষে'ধক ওষুধ আবিষ্কার: ওষুধ প্রয়োগে সুস্থ হয়ে উঠছে রোগীরা

গার্মেন্টসে নামাজ বাধ্যতামূলক করা সংবিধান বিরোধীঃ আইনমন্ত্রী

২০ হাজার মানুষের বসবাস থাকলেও বাংলাদেশের যে গ্রামে কোনো নারী নেই!

বাংলাদেশ এখন ভারতের চেয়ে কোথায় কোথায় এগিয়ে দেখিয়ে দিল হিন্দুস্তান টাইমস!

বিচিত্র জগৎ


যে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে হলে অবশ্যই ম্যাট্রিকে ফেল করতে হবে!

যে-বিশ্ববিদ্যালয়ে-ভর্তি-হতে-হলে-অবশ্যই-ম্যাট্রিকে-ফেল-করতে-হবে-

আবারো বিয়ের পিঁড়িতে ৬ ভাইবোন, বাসর সাজালেন নাতি-নাতনিরা

আবারো-বিয়ের-পিঁড়িতে-৬-ভাইবোন-বাসর-সাজালেন-নাতি-নাতনিরা

চারবার আবেদন করেও ব্যাংক ঋণ না পেয়ে কিনলেন লটারি, ১৪ কোটি টাকা জিতলেন দিনমজুর

চারবার-আবেদন-করেও-ব্যাংক-ঋণ-না-পেয়ে-কিনলেন-লটারি-১৪-কোটি-টাকা-জিতলেন-দিনমজুর বিচিত্র জগতের সকল খবর »

জেলার খবর


ঢাকা ফরিদপুর
গাজীপুর গোপালগঞ্জ
জামালপুর কিশোরগঞ্জ
মাদারীপুর মানিকগঞ্জ
মুন্সিগঞ্জ ময়মনসিংহ
নারায়ণগঞ্জ নরসিংদী
নেত্রকোনা রাজবাড়ী
শরীয়তপুর শেরপুর
টাঙ্গাইল ব্রাহ্মণবাড়িয়া
কুমিল্লা চাঁদপুর
লক্ষ্মীপুর নোয়াখালী
ফেনী চট্টগ্রাম
খাগড়াছড়ি রাঙ্গামাটি
বান্দরবান কক্সবাজার
বরগুনা বরিশাল
ভোলা ঝালকাঠি
পটুয়াখালী পিরোজপুর
বাগেরহাট চুয়াডাঙ্গা
যশোর ঝিনাইদহ
খুলনা মেহেরপুর
নড়াইল নওগাঁ
নাটোর গাইবান্ধা
রংপুর সিলেট
মৌলভীবাজার হবিগঞ্জ
নীলফামারী দিনাজপুর
কুড়িগ্রাম লালমনিরহাট
পঞ্চগড় ঠাকুরগাঁ
সুনামগঞ্জ কুষ্টিয়া
মাগুরা সাতক্ষীরা
বগুড়া জয়পুরহাট
চাঁপাই নবাবগঞ্জ পাবনা
রাজশাহী সিরাজগঞ্জ