রবিবার, ১৯ ডিসেম্বর, ২০২১, ০৭:৫৭:৫২

মরা ছাগল ও ভেড়ার মাংস হাসপাতাল-কারাগার-রেস্তোরাঁয় সরবরাহ করেন তারা

মরা ছাগল ও ভেড়ার মাংস হাসপাতাল-কারাগার-রেস্তোরাঁয় সরবরাহ করেন তারা

দীর্ঘদিন ধরেই তারা মরা ছাগল ও ভেড়ার মাংস রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, কারাগার এবং নগরীর বিভিন্ন হোটেল-রেস্তোরাঁয় সরবরাহ করে আসছিলেন। চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জসহ বিভিন্ন উপজেলা এলাকায় ছাগল-ভেড়া মরলেই তারা সেটি সংগ্রহ করে ফ্রিজে রাখতেন। পরে দরদাম ঠিক করে গোপনে সরবরাহ করতেন মরা ছাগল ও ভেড়ার মাংস।

শনিবার রাতে রাজশাহী মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ পিকআপ ভর্তি মরা ছাগল, ভেড়া ও বিপুল পরিমাণ পচা মাংস জব্দ করে। এসময় আটক করা হয় অভিযুক্ত চারজনকে। পরে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের আদালতে হাজির করা হলে তাদের এক লাখ ৬০ হাজার জরিমানা করা হয়। অর্থদণ্ড দিয়েই তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

রাজশাহী মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপ-কমিশনার (ডিসি) জুয়েল আরফিন বলেন, আটককৃতরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন, এসব মরা ছাগল-ভেড়া গ্রাম থেকে সংগ্রহ করেন। চাহিদা অনুযায়ী তারা এগুলো রাজশাহী কারাগার, হাসপাতালসহ বিভিন্ন হোটেল-রেস্তোরাঁয় সরবরাহ করে আসছেন।

তিনি আরও বলেন, মাংসসহ গ্রেফতার ব্যক্তিদের বিভাগীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের আদালতে সোপর্দ করা হয়। আদালত তাদের ১ লাখ ৬০ হাজার জরিমানা করেছেন। আটকদের আর্থিক জরিমানা করার কারণে তাদের অন্য কোনো সাজা দেওয়া হয়নি।

এদিকে, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, হাসপাতালে মরা ছাগলের মাংস সরবরাহের কোনো সুযোগ নেই। কারণ রোগীদের ডায়েটে শুধু মাছ ও মুরগির মাংস থাকে। সরকার নির্ধারিত বিশেষ দিনে খাসির মাংস সরবরাহ করা হয়। এক্ষেত্রে সরবরাহকারী ঠিকাদারকে অবশ্যই খাসি হাসপাতালে নিয়ে আসতে হয়। এরপর তা প্রকা'শ্যে জবাইয়ের পর রোগীদের জন্য রান্নার ব্যবস্থা করা হয়।

এমটিনিউজ২৪.কম এর খবর পেতে গুগল নিউজ (Google News) এ ডান দিকের স্টার বাটনে ক্লিক করে গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি ফলো করুন! Follow করুন এমটিনিউজ২৪ গুগল নিউজ