অনেক ভ্রান্ত ধারণা: চিত্রাল, গিলগিট ও কাশ্মীরের বিকৃত ইতিহাস

০৭:২২:০১ বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০

সর্বশেষ সংবাদ :

     • বাংলাদেশ থেকে ব্যান্ডউইথ নিতে চায় ভারত ও সৌদি আরব     • তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারায় বঙ্গবন্ধুর, ঢাকায় আতাতুর্কের ভাস্কর্য হবে     • হোয়াইট হাউস ছাড়তে আপত্তি, আরও চার বছর থাকবেন ট্রাম্প     • ইরানের পরমাণু স্থাপনা পরিদর্শন করেন মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার গুপ্তচর     • যে ৬১ পৌরসভায় ভোট হবে ১৬ জানুয়ারি     • উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় বুরেভি     • ভারতের জাতীয় সংগীত 'জন গন মন' বদল করার দাবি     • ধর্ম বদলে বিয়ে, প্রাণনাশের আতঙ্কে দম্পতি     • ব্রহ্মপুত্রে বাঁধ নির্মাণে চীনের ঘোষণার দুই দিনের মাথায় ভারতের পাল্টা ঘোষণা     • ভাস্কর্য নিয়ে সৃষ্ট অস্থিরতা, করণীয় ঠিক করতে বৈঠকে দেশের শীর্ষ আলেমরা

শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২০, ১২:৩৯:৪৭

অনেক ভ্রান্ত ধারণা: চিত্রাল, গিলগিট ও কাশ্মীরের বিকৃত ইতিহাস

অনেক ভ্রান্ত ধারণা: চিত্রাল, গিলগিট ও কাশ্মীরের বিকৃত ইতিহাস

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : কাশ্মীর নিয়ে আজও রয়েছে অনেক ভ্রান্ত ধা'রণা। সেই ভু'ল ধা'রণার মূল কারণ ইতিহাসের বিকৃ'তি। ভারতভাগের আগে থেকেই তৈরি হয়েছিল অবিশ্বাসের বাতাবরণ। ব্রিটিশরা যাওয়ার আগে থেকেই শুরু হয় বি'ভ্রা'ন্তি। সেই বিভ্রা'ন্তির মূল্য দিতে হচ্ছে ভারতকে। দ্বিজাতিতত্ত্বে ভর করে কাশ্মীর সম'স্যার সূত্রপাত ব্রিটিশ যুগেই। 

সাম্প্র'দায়িক দৃষ্টিতে কাশ্মীরকে দেখতে গিয়ে সম'স্যা তৈরি হয়। উপত্যকার আজকের পরিণতির সূত্রপাতও সেই সময়ই তৈরি হয়। দেশভাগ নিয়ে ভারতের স্বাধীনতাসংগ্রামীরা কেন এত হুটোপুটি করেছিলেন, সেটা নিয়েও অনেকের মনে সং'শ'য় রয়েছে। দেশভাগ নিয়ে আরো চিন্তাভাবনার প্রয়োজন ছিল। অনেক প্রশ্নের জবাব আজও রহ'স্যজনক রয়ে গেছে।

ভারত কেন নর্থ ওয়েস্ট ফ্রন্টিয়ার প্রভিন্স পেল না? ১৯৪৬ সালের প্রাদেশিক নির্বাচনে তো কংগ্রেস সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছিল? বেলুচিস্তানের ৮০ শতাংশ এলাকা নিয়ে গঠিত কালাত। পাকিস্তানের বর্তমান মানচিত্রের ৪০ শতাংশ এলাকাই কালাতের মধ্যে পড়ে। কী করে পাকিস্তান ১৯৪৮-এর এপ্রিলে দ'খ'ল করল? গিলগিটকা'ণ্ডও ভারতের বি'রু'দ্ধে একটা বড় ষ'ড়য'ন্ত্র। 

বালতিস্তান, হুঞ্জা, নগর, পুনিয়াল, ইয়াশিন, ইস্কোমান ও চিত্রাল ভারতেরই দ'খলে থাকা উচিত ছিল। ভারতীয়রাও অনেকেই এ জায়গাগুলো সম্পর্কে অপরিচিত। কিন্তু এই জায়গাগুলোর গুরুত্ব অনেক। বালতিস্তান, সাকহাম উপত্যকা, আকসাই চীন ও পাক অধিকৃত কাশ্মীরকে (পিওকে) ভারতের অবিচ্ছে'দ্য অঙ্গ হিসেবে দেখানো হলেও জম্মু ও কাশ্মীরের মানচিত্রে চিত্রালের কোনো উল্লেখ নেই। কিন্তু চিত্রাল কাশ্মীরের অধীনেই ছিল। 

অথচ চিত্রালকে পাকিস্তানের অঙ্গ হিসেবে দেখানো হলেও কেউ আ'পত্তি করেনি। কেন প্রতিবা'দ করা হয়নি চিত্রাল নিয়ে? ১৮৭০ সালে অ্যাংলো-আফগান যু'দ্ধকালে ব্রিটিশরা আফগানিস্তানকে পরা'স্ত করার বিষয়ে যথেষ্ট চিন্তায় ছিল। আফগানিস্তান চিত্রালের মেহতারকে হু'মকিবার্তা পাঠায়। বলা হয়, ব্রিটিশবিরো'ধী যুদ্ধে আফগান পক্ষ না নিলে চিত্রাল আ'ক্র'মণ করা হবে। তখন ব্রিটিশদের পরামর্শে মহারাজা চিত্রালের সঙ্গে স'ন্ধি করেন। 

কাশ্মীরের মহারাজার সঙ্গে চু'ক্তির ভিত্তিতেই ১৮৭৮ থেকে চিত্রাল কাশ্মীরের অঙ্গ। এই চু'ক্তি মতেই চিত্রালের মেহতার কাশ্মীরের মহারাজার নির্দে'শ মানতে বাধ্য। মহারাজার শ'ত্রুকে নিজের শ'ত্রু বলে মানতেও বাধ্য ছিলেন তিনি। তাকে বার্ষিক নজরানাও দিতে হতো কাশ্মীরের মহারাজাকে। আবার বিনিময়ে কাশ্মীর থেকে ভর্তুকিও পেত চিত্রাল। ১৯৩৯-এ চিত্রালের মেহতার কাশ্মীর দরবারে ১৮৭৮-এর চু'ক্তি মতে সরাসরি আলোচনার বিষয়ে যথেষ্ট আগ্রহী ছিলেন। 

সেই চুক্তিতে ব্রিটিশদের কোনো উল্লেখই ছিল না। অর্থাৎ কাশ্মীর নিয়ে ব্রিটিশদের কোনো ভূমিকাই ছিল না। ১৯৩৫ সালে গিলগিট ওয়াজারাত অবশ্য ইংরেজশাসিত ভারত সরকারের হস্তগত হয়। এই সময়ই কাশ্মীরের সঙ্গে চিত্রালের চুক্তির বিষয়টি নতুন করে সামনে আসে। কিন্তু বিশ্বযু'দ্ধের কারণে ফের ধা'মাচা'পা পড়ে যায় চিত্রালের বিষয়টি। দু-দুটি বিশ্বযু'দ্ধ চিত্রালের সঙ্গে কাশ্মীরের সম্পর্ক নিয়ে কাউকে ভাবার অবসরই দেয়নি। ফলে অমীমাং'সিতই থেকে যায় বিষয়টি। এরই মধ্যে ১৯৪৭-এ ভারত ও পাকিস্তানের স্বাধীনতা এবং দেশভাগ। ব্রিটিশরা কিন্তু কখনোই কাশ্মীর বা চিত্রাল শা'সন করতে পারেনি।

তাই সাতচল্লিশের অক্টোবরের তৃতীয় সপ্তাহেই কাশ্মীর আ'ক্র'মণের পেছনে ব্রিটিশ পৃষ্ঠপোষকতার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যায় না। মহারাজার বাহি'নী ব্রিটিশ সামরিক অফিসার মেজর উইলিয়াম আলেকজেন্ডার সেনা অভ্যু'ত্থানের মাধ্যমে গিলগিট দ'খ'ল করে সেখানে পাকিস্তানি পতাকা উত্তোলন করেন। একইভাবে বালতিস্তানও পাকিস্তানের অঙ্গ হয়ে ওঠে। চিত্রাল কাশ্মীরের অঙ্গ হলেও তা নিয়ে ভারত কখনো মাথাব্যথা দেখায়নি। 

উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশ বালুচিস্তান ছাড়াও পাকিস্তানের বহু এলাকাই ভারতের হাতছাড়া হোক এটা ব্রিটিশরা চেয়েছিল। রহ'স্যজনক ভারতের ভূমিকা। দেশভাগের ৭০ বছর পার হয়ে গেলেও পাকিস্তানের দ'খ'লদারি নিয়ে এতকাল কোনো উচ্চবাচ্য করতে শোনা যায়নি। ভারতীয় রাজনীতিবিদরা কি মনে করেন, দেশভাগ সত্যি জরুরি ছিল? সাম্প্র'দায়িকতাই দেশভাগকে বা'ধ্য করেছিল অনেকেরই এটাই বিশ্বাস। কিন্তু সেই ধা'রণা ব'দলের সময় এসেছে। গিলগিটের ঘ'টনা উদাহরণ মাত্র। পেছনে আরো রহ'স্য রয়েছে।

১৯৩৫ সালের ব্রিটিশ-ভারত গভর্নমেন্ট গিলগিট দখল করতে চেয়েছিল। কিন্তু করেনি। বলা ভালো করতে পারেনি। কারণ গিলগিট ছিল কাশ্মীরের মহারাজার অধীনে। তাই আইনবলেই ব্রিটিশরা সেটা করতে পারেনি। ১৯৩৫ সালের এই আইনবলেই প্রমাণিত হয়, গিলগিট কাশ্মীরের মহারাজার অধীনেই ছিল। তাই ব্রিটিশরা সেখানে নাক গলাতে পারেনি। নইলে এই আইন দিয়েই ব্রিটিশরা গিলগিট দ'খ'ল করতে পারত। 

পারত হুঞ্জা, নগর, কো-গিজার, ইয়াশিন ও ইস্কোমানকে অবিভক্ত ভারতের মানচিত্রে যুক্ত করতে। পুনিয়ালও কাশ্মীরের দরবারে অংশ নিয়ে মহারাজার জায়গির গ্রহণ করে। কিন্তু অ'ন্যা'য়ভাবে ব্রিটিশরা কাশ্মীরের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোতে আ'ঘা'ত করে। অথচ কাশ্মীরের জনগণনার রিপোর্টে আটটি প্রাদেশিক রাজ্যের কথাই উল্লেখ রয়েছে। ব্রিটিশ ভারতের ১৯৩৫-এর আইন মতে কি চিত্রাল কাশ্মীরের অঙ্গ হিসেবে বিবেচিত নয়? চিত্রাল কাশ্মীরের অধীনেই ছিল। 

১৯১৪ সালের চুক্তিতেই তার উল্লেখ রয়েছে। আইচিসন চুক্তির ১১ খণ্ডের ৪২৮ পৃষ্ঠায় এ বিষয়ে উল্লেখ রয়েছে। চুক্তিপত্রটি প্রত্যয়ন করেছিলেন চিত্রালের সহকারী পলিটিক্যাল এজেন্ট। ভারতীয় অঙ্গরাজ্যের সংজ্ঞা অনুযায়ীই চিত্রালকে কাশ্মীরের অঙ্গ হিসেবে বিবেচনা করা উচিত ছিল। কিন্তু বিষয়টিকে পাশ কাটিয়ে যাওয়ার জন্য ব্রিটিশরাই সেই আইনের সংশো'ধন করে। নতুন সংশো'ধনীতে বলা হয়, সরাসরি শা'সকের অধীন নয় এমন রাজ্যগুলোকে ভারত সরকার চাইলেই নিজেদের অন্তর্ভুক্ত করতে পারে।

অর্থাৎ কাশ্মীরের অধীন এলাকা দ'খলের ফ'ন্দি ভালোই করেছিল ব্রিটিশরা। মহারাজার অধীন এলাকাগুলোকে তার হাত থেকে কেড়ে নিতেই ব্রিটিশদের এই চাতুরীর আশ্রয় নিতে হয়। চ'র'ম বিশ্বাসঘা'তকতা! ১৯৫৩ সালের মাঝামাঝি সিন্ধুর পানি নিয়ে সম'স্যা দেখা দেয়। সেই সময় পাকিস্তানের দা'খিল করা মানচিত্রে সাবেক গিলগিটকে পাকিস্তানের অঙ্গ হিসেবেই দেখানো হয়। সেই সময় ১৯৫৩ সালের ২১ মার্চ সেচ ও বিদ্যুত্ মন্ত্রক থেকে রাজ্য মন্ত্রকের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল গিলগিটের তত্কালীন অবস্থানের কথা।

৩০ জুন জন্মু ও কাশ্মীরের মুখ্য সচিবের কাছ থেকে গিলগিট সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য চেয়ে পাঠানো হয়। মুখ্য সচিব বিশ্বনাথন ২৯ জুলাই ভারত সরকারের যুগ্ম সচিবকে তার নোটস পাঠান। সেই নোটে গিলগিট এজেন্সির এলাকা সম্পর্কে চারটি জায়গার উল্লেখ করা হয়েছে, (১) গিলগিটের তহসিল ও আস্টরের নিয়াবত নিয়ে গিলগিট ওয়াজারাত। (২) হুঞ্জা ও নগর প্রদেশ। (৩) রিপাবলিক অব চিলা এবং (৪) পুনিয়াল, ইয়াশিন, কো-গিজার, ইস্কোমানের গভর্নরশিপ।

১৮৮০ থেকে ব্রিটিশরা মহারাজার শাসনাধীন কাশ্মীরকে উ'ত্ত্য'ক্ত করার নানা ফন্দিফিকির করতে থাকে। কাশ্মীরের মহারাজার প্রতি সেই শ'ত্রুতা ভারত ছাড়ার সময়ও যায়নি। ১৯৪৭ সালে দেশভাগের সময় পুরো গিলগিটটাই পাকিস্তানের তুলে দেওয়াটাও তাদের সেই মানসিকতারই অংশ। ১৯৪৭ থেকে ১৯৪৮ সাল পর্যন্ত কাশ্মীর নিয়ে ভারত সরকার একাধিক নির্দে'শিকা পাঠায়। সেই নির্দে'শিকা বিশ্লেষণ করলেও গিলগিট নিয়ে ব্রিটিশদের পাকিস্তান দরদের পরিচয় মেলে। 

খোদ ভারতের প্রধানমন্ত্রীরও গিলগিট-বালতিস্তান নিয়ে বহু চিঠি রয়েছে। কিন্তু সেই চিঠিগুলোতে ভারতের বহু এলাকা পাকিস্তানের দ'খলে চলে যাওয়ার বিষয়টি অনুচ্চারিত। ব্রিটিশরা প্রথম থেকেই কাশ্মীরের মহারাজার ওপর ক্ষি'প্ত ছিল। তারা চায়নি গিলগিট বা চিত্রাল তার অধীনেই থাকুক। ব্রিটিশরা চিরকালই তাই কাশ্মীর নিয়ে পাকিস্তানের পক্ষেই সওয়াল করেছে। জনমতকে উপেক্ষা করে তারা চেয়েছিল গোটা জম্মু ও কাশ্মীরই থাকুক পাক-পদতলে। 

তাই কাশ্মীরের অঙ্গ হলেও গিলগিট পেয়েছে পাকিস্তান। চিত্রালও তা-ই। রহস্যজনক ভারতীয় জননেতাদের নীরবতাও। চিত্রাল বা গিলগিট নিয়ে চা'প বৃদ্ধির বদলে তারা স্বাধীনতা ও দেশভাগের জন্য কেন এত হু'টোপুটি করে দেশের অঙ্গহা'নি ঘ'টালেন সেটা আজও বোধগম্য নয়। ঐতিহাসিকরাও বেশির ভাগই ব্রিটিশদের মনগড়া বক্তব্যেই প্রভাবিত। তাই গিলগিট বা চিত্রালের ঘটনা সাধারণ মানুষের অগোচরেই রয়ে গেছে আজও। সময় এসেছে সেই ইতিহাসকে সত্যের আলোকে তুলে ধরার।



খেলাধুলার সকল খবর »

ইসলাম


স্বামী-সন্তান হারিয়েছি, ঈমান ত্যাগ করিনি : নওমুসলিম নারীর আত্মত্যাগের কথা

স্বামী-সন্তান-হারিয়েছি-ঈমান-ত্যাগ-করিনি-নওমুসলিম-নারীর-আত্মত্যাগের-কথা

পবিত্র কাবা দৃষ্টিগোচর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমাদের অনেকেই কেঁদে ফেললেন

পবিত্র-কাবা-দৃষ্টিগোচর-হওয়ার-সঙ্গে-সঙ্গে-আমাদের-অনেকেই-কেঁদে-ফেললেন

পবিত্র কোরআনে বর্ণিত ত্বীন এখন চাষ হচ্ছে গাজীপুরের বারতোপা গ্রামে

পবিত্র-কোরআনে-বর্ণিত-ত্বীন-এখন-চাষ-হচ্ছে-গাজীপুরের-বারতোপা-গ্রামে ইসলাম সকল খবর »

এক্সক্লুসিভ নিউজ


প্রেমের সম্পর্ক স্থায়ী না ভেঙে যাবে? জানা যাবে এই ৫ লক্ষণে!

প্রেমের-সম্পর্ক-স্থায়ী-না-ভেঙে-যাবে--জানা-যাবে-এই-৫-লক্ষণে-

বিয়ের আসরে উপহারস্বরূপ বরকে একে-৪৭ উপহার!

বিয়ের-আসরে-উপহারস্বরূপ-বরকে-একে-৪৭-উপহার-

মাত্র তিন দিনে বিশ্বভ্রমণের রেকর্ড, গিনেস বুকে এই মুসলিম নারী

মাত্র-তিন-দিনে-বিশ্বভ্রমণের-রেকর্ড-গিনেস-বুকে-এই-মুসলিম-নারী এক্সক্লুসিভ সকল খবর »

সর্বাধিক পঠিত


ম্যারাডোনার মৃত্যুতে ভেঙে পড়েছেন নাটোরের বাবু, ভাত খাওয়াও বন্ধ

শেষ পর্যন্ত বাবর আজমকে ‘দীর্ঘ মেয়াদি’ অধিনায়ক করলো পাকিস্তান

সৌম্য এক পর্যায়ে একটু কাছাকাছি চলে এলেও তাকে দূরে সরতে বলেন মাশরাফি

বজ্রের মতো আঘাত হেনে ফাখরিজাদেহকে হত্যার প্রতিশোধ নেয়া হবে: ইরানের সামরিক বাহিনী

বিচিত্র জগৎ


জানাজা শেষে মুচকি হেসে বাসায় ফিরতো বাপ্পি, রাত হলেই কবরের লাশ তুলে বাসায় নিতো!

জানাজা-শেষে-মুচকি-হেসে-বাসায়-ফিরতো-বাপ্পি-রাত-হলেই-কবরের-লাশ-তুলে-বাসায়-নিতো-

৭৫ বছর বয়সী প্রেমজি প্রতিদিন ২৫ কোটি টাকা দান করেন!

৭৫-বছর-বয়সী-প্রেমজি-প্রতিদিন-২৫-কোটি-টাকা-দান-করেন-

'৪৯ বছর বয়সেই সারা বিশ্বে ১৫০ শিশুর বাবা আমি!'

-৪৯-বছর-বয়সেই-সারা-বিশ্বে-১৫০-শিশুর-বাবা-আমি-- বিচিত্র জগতের সকল খবর »

জেলার খবর


ঢাকা ফরিদপুর
গাজীপুর গোপালগঞ্জ
জামালপুর কিশোরগঞ্জ
মাদারীপুর মানিকগঞ্জ
মুন্সিগঞ্জ ময়মনসিংহ
নারায়ণগঞ্জ নরসিংদী
নেত্রকোনা রাজবাড়ী
শরীয়তপুর শেরপুর
টাঙ্গাইল ব্রাহ্মণবাড়িয়া
কুমিল্লা চাঁদপুর
লক্ষ্মীপুর নোয়াখালী
ফেনী চট্টগ্রাম
খাগড়াছড়ি রাঙ্গামাটি
বান্দরবান কক্সবাজার
বরগুনা বরিশাল
ভোলা ঝালকাঠি
পটুয়াখালী পিরোজপুর
বাগেরহাট চুয়াডাঙ্গা
যশোর ঝিনাইদহ
খুলনা মেহেরপুর
নড়াইল নওগাঁ
নাটোর গাইবান্ধা
রংপুর সিলেট
মৌলভীবাজার হবিগঞ্জ
নীলফামারী দিনাজপুর
কুড়িগ্রাম লালমনিরহাট
পঞ্চগড় ঠাকুরগাঁ
সুনামগঞ্জ কুষ্টিয়া
মাগুরা সাতক্ষীরা
বগুড়া জয়পুরহাট
চাঁপাই নবাবগঞ্জ পাবনা
রাজশাহী সিরাজগঞ্জ