মাটির নীচে হাজার হাজার টন বিস্ফোরক! যে কোনও দিন উড়ে যাবে গোটা গ্রাম

১১:৩৫:৫১ মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

সর্বশেষ সংবাদ :

     • টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অংশ নিতে ৩ অক্টোবর ঢাকা ছাড়বে টাইগাররা     • শেখ হাসিনা জন্ম না নিলে আমরা গণতন্ত্র পেতাম না, ভোট ও ভাতের অধিকার পেতাম না: শেখ পরশ     • বাবার মৃত্যুর খবরে মেয়ে আর মেয়ের মৃত্যুর খবরে নাতির মৃত্যু! এলাকায় শোকের ছায়া     • আমাকে সঙ্গমে অক্ষম বলে কেন আক্রমণ করা হচ্ছে : শ্রাবন্তীকে রোশন সিং     • এটি প্রথমবারের মতো বিশেষ চ্যালেঞ্জ, স্বীকার করলেন নায়িকা বুবলি     • বাংলাদেশের তিন ক্রিকেটার এশিয়ার সেরাএকাদশে     • প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানালেন মাশরাফি     • ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর ওপর ডিম নিক্ষেপ     • হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে ইনজামাম     • বাংলাদেশকে স্বপ্নের ঠিকানায় পৌঁছে দিতে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই : তথ্যমন্ত্রী

শনিবার, ৩১ জুলাই, ২০২১, ০৮:১৫:২১

মাটির নীচে হাজার হাজার টন বিস্ফোরক! যে কোনও দিন উড়ে যাবে গোটা গ্রাম

মাটির নীচে হাজার হাজার টন বিস্ফোরক! যে কোনও দিন উড়ে যাবে গোটা গ্রাম

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : সুইজারল্যান্ডের কিনডের উপত্যকা। মনোরম প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর। মাথার উপর উজ্জ্বল আকাশ, চারপাশে গগনভেদী পাহাড় আর মাঝে ছোট গ্রাম মিতহোলজত। মাত্র ১৭০টি পরিবারের বাস এই পাহাড়ি গ্রামে। প্রতিটি বাড়ি একই আদলে তৈরি। একতলায় গবাদি পশুর ঘর আর দোতলায় নিজেদের থাকার জায়গা।

আল্পস পর্বতমালার পাদদেশে প্রায় সব গ্রামেই এই কায়দায় গড়ে উঠেছে ঘর-বাড়ি। নিজেদের ব্যস্ত জীবন থেকে ছুটি নিয়ে সমস্ত দুশ্চিন্তা দূর করতে পর্যটকদের জন্য আদর্শ ঠিকানা হতে পারে এই গ্রাম। এই গ্রামের প্রতিটি ঘরের প্রতিটি মানুষের কপালে কিন্তু সারা ক্ষণই দুশ্চিন্তার ভাঁজ। প্রতি মুহূর্ত মৃত্যুর হাতছানিকে সঙ্গে করেই বাস তাদের। ৭৪ বছর আগে ঘটে যাওয়া ভয়ঙ্কর ইতিহাস আজও পিছু ছাড়েনি গ্রামবাসীদের।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় সুইস সেনাদের অস্ত্রভাণ্ডার ছিল এই পাহাড়ি গ্রাম। মাটির তলায় গোপনে তারা এই অস্ত্রভাণ্ডার পরিচালনা করত। তাতে মজুত ছিল প্রচুর পরিমাণে বিস্ফোরক। ১৯৩৯ থেকে ১৯৪৫ সাল পর্যন্ত দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলে। গোলা-বারুদের রমরমা দেখেই দিন কাটিয়েছেন এই এলাকার বাসিন্দারা। ১৯৪৫ সালে যুদ্ধের সমাপ্তি ঘোষণা হলে বাসিন্দারা ভেবেছিলেন আর কোনও বিস্ফোরণ, গোলাগুলির সম্মুখীন হতে হবে না তাদের।

দু'বছর পর দুঃস্বপ্নের রাত ফের ফিরে আসে তাদের জীবনে। সেটা ১৯৪৭ সাল। গভীর রাতে আচমকা ধামকায় কেঁপে ওঠে গোটা গ্রাম। গ্রামবাসীরা মনে করেছিলেন ভূমিকম্প হয়েছে। কিন্তু বাইরে বেরিয়ে যে দৃশ্য তারা দেখেছিলেন তা আজও চোখের সামনে বিভীষিকা তৈরি করে। চারদিক দাউ দাউ করে জ্বলছিল। প্রাণে বাঁচার মরিয়া চেষ্টায় হুড়োহুড়ি পড়ে গিয়েছিল বাসিন্দাদের মধ্যে।

এক রাতের মধ্যেই পুরো গ্রাম পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছিল। প্রচুর মানুষ মারা গিয়েছিলেন, জখমের সংখ্যাও ছিল অসংখ্য। এই গ্রামের এমন কোনও ঘর অবশিষ্ট ছিল না যা আগুনের গ্রাস থেকে রক্ষা পেয়েছিল। পরে জানা যায়, অস্ত্রভাণ্ডারে মজুত বিস্ফোরকে বিস্ফোরণেই এই পরিণতি হয়েছিল। রাতারাতি গোটা গ্রাম প্রায় জনশূন্য হয়ে গিয়েছিল। সরকারি হিসাব অনুযায়ী, সাত হাজার টন বিস্ফোরকে বিস্ফোরণ ঘটেছিল সে দিন।

এর পরের বছর ১৯৪৮ সালে সুইস সরকার এই গ্রামকে নিরাপদ ঘোষণা করে এবং ফের বসতি গড়ে তোলার সবুজ সঙ্কেত দেয়। একে একে বাসিন্দারা গ্রামে ফিরে আসেন। ফের নতুন করে বাড়ি বানিয়ে নেন ওই গ্রামে। আর কোনও বিপদ আসবে না এ বিষয়ে তারা নিশ্চিত ছিলেন। সুইস সরকারের থেকেও তেমনই আশ্বাস মিলেছিল। তাই অনেকেই সঞ্চয়ের অনেকটা খরচ করে স্বপ্নের বাড়ি বানিয়েছিলেন।

২০১৮ সালে সুইস সরকার এই গ্রামে ফের প্রচুর পরিমাণ বিস্ফোরকের হদিশ পায়। এখনও সাড়ে তিন হাজার টন বিস্ফোরক রয়েছে গোপন অস্ত্রভাণ্ডারে। এমনই জানিয়েছে সুইস সরকার। গ্রাম খালি করে বিস্ফোরক অন্যত্র সরিয়ে যাওয়ার কাজ শুরু করার কথাও ওই সময়ে ঘোষণা করে দেয় সরকার। তা না করলে যে কোনও দিন ফের আর এক ভয়াবহ বিস্ফোরণে কেঁপে উঠতে পারে গোটা গ্রাম। কিন্তু তা সত্ত্বেও ভিটে ছাড়তে নারাজ গ্রামবাসীদের একাংশ।

সুইস সরকারের হিসাব অনুযায়ী, ১০ বছর লাগবে ওই পরিমাণ বিস্ফোরক নিরাপদে অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যেতে। আর এই ১০ বছর গ্রামবাসীদের ভিটেছাড়া হয়েই কাটাতে হবে। এর জন্য ক্ষতিপূরণ দিতেও রাজি সুইস সরকার। কিন্তু রাজি হননি গ্রামবাসীদের একাংশ। বিপদের ঝুঁকি মাথায় নিয়ে তাই ভিটে আগলে গ্রামেই পড়ে রয়েছেন তারা।



খেলাধুলার সকল খবর »

ইসলাম


যতই খারাপ সময় হউক নামাজ ছাড়া যাবে না

যতই-খারাপ-সময়-হউক-নামাজ-ছাড়া-যাবে-না

জুমার দিনের পাঁচ ঐতিহাসিক ঘটনা

জুমার-দিনের-পাঁচ-ঐতিহাসিক-ঘটনা

ওমানে দেড় বছর পর মসজিদে জুমার নামাজের অনুমোদন

ওমানে-দেড়-বছর-পর-মসজিদে-জুমার-নামাজের-অনুমোদন ইসলাম সকল খবর »

এক্সক্লুসিভ নিউজ


দাম উঠেছিল ২১ কোটি! রোজ দুধ-ঘি-মদ্যপানে হৃদ্‌রোগে মৃত্যু সুলতানের

দাম-উঠেছিল-২১-কোটি--রোজ-দুধ-ঘি-মদ্যপানে-হৃদ্‌রোগে-মৃত্যু-সুলতানের

কিডনি দিয়ে একে অপরের স্বামীকে বাঁচালেন ভিন্ন ধর্মালম্বী দুই নারী

কিডনি-দিয়ে-একে-অপরের-স্বামীকে-বাঁচালেন-ভিন্ন-ধর্মালম্বী-দুই-নারী

ফেসবুকের কল্যাণে হারিয়ে যাওয়া ১০ বছরের ছেলে মাকে খুঁজে পেলেন ৭০ বছর পর!

ফেসবুকের-কল্যাণে-হারিয়ে-যাওয়া-১০-বছরের-ছেলে-মাকে-খুঁজে-পেলেন-৭০-বছর-পর- এক্সক্লুসিভ সকল খবর »

সর্বাধিক পঠিত


দ্বিতীয় বিয়েতে আগ্রহ, ফুটন্ত তেলে ঘুমন্ত স্বামীর পুরুষাঙ্গ ঝলসালেন স্ত্রী!

যতই খারাপ সময় হউক নামাজ ছাড়া যাবে না

দাফনের পরই এল সেই জুয়েলের সরকারি চাকরির খবর

টেস্ট ফরম্যাট থেকে চিরবিদায় নিলেন মঈন আলী

বিচিত্র জগৎ


একসঙ্গে তিনটি বাছুর প্রসব করল দেশী প্রজাতীর একটি গাভী!

একসঙ্গে-তিনটি-বাছুর-প্রসব-করল-দেশী-প্রজাতীর-একটি-গাভী-

নববধূকে প্রণাম করে বিবাহিত জীবন শুরু স্বামীর

নববধূকে-প্রণাম-করে-বিবাহিত-জীবন-শুরু-স্বামীর

শুনে অবাক হচ্ছেন? টয়লেট ব্যবহার করছে গরু, করতে পারে ‘ফ্লাশ’ ও! (ভিডিও)

শুনে-অবাক-হচ্ছেন--টয়লেট-ব্যবহার-করছে-গরু-করতে-পারে-‘ফ্লাশ’-ও--ভিডিও বিচিত্র জগতের সকল খবর »

জেলার খবর


ঢাকা ফরিদপুর
গাজীপুর গোপালগঞ্জ
জামালপুর কিশোরগঞ্জ
মাদারীপুর মানিকগঞ্জ
মুন্সিগঞ্জ ময়মনসিংহ
নারায়ণগঞ্জ নরসিংদী
নেত্রকোনা রাজবাড়ী
শরীয়তপুর শেরপুর
টাঙ্গাইল ব্রাহ্মণবাড়িয়া
কুমিল্লা চাঁদপুর
লক্ষ্মীপুর নোয়াখালী
ফেনী চট্টগ্রাম
খাগড়াছড়ি রাঙ্গামাটি
বান্দরবান কক্সবাজার
বরগুনা বরিশাল
ভোলা ঝালকাঠি
পটুয়াখালী পিরোজপুর
বাগেরহাট চুয়াডাঙ্গা
যশোর ঝিনাইদহ
খুলনা মেহেরপুর
নড়াইল নওগাঁ
নাটোর গাইবান্ধা
রংপুর সিলেট
মৌলভীবাজার হবিগঞ্জ
নীলফামারী দিনাজপুর
কুড়িগ্রাম লালমনিরহাট
পঞ্চগড় ঠাকুরগাঁ
সুনামগঞ্জ কুষ্টিয়া
মাগুরা সাতক্ষীরা
বগুড়া জয়পুরহাট
চাঁপাই নবাবগঞ্জ পাবনা
রাজশাহী সিরাজগঞ্জ